প্রভাত বাংলা

site logo
Breaking News
||Odisha CM Oath Ceremony : 24 বছর পর নতুন মুখ্যমন্ত্রী পেল ওড়িশা, শপথ নিলেন মোহন মাঝি||Daily Horoscope: : বৃহস্পতি নক্ষত্রের পরিবর্তনের কারণে, মেষ, কর্কট এবং তুলা রাশির জাতকদের জন্য সম্পদ বৃদ্ধির সম্ভাবনা থাকবে||শাহবাজ সরকারের সঙ্গে আলোচনার জন্য প্রস্তুত ইমরান খান|| টিএমসি নেতা সোহম চক্রবর্তীর অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে মারধরের মামলায় হাইকোর্টে রেস্তোরাঁর মালিক||গঙ্গা স্নানের সময় এই ভুলগুলি করবেন না, ঘরে দারিদ্র্য আসবে, পাপের অংশীদার হতে পারেন||মহেশ নবমী তারিখ 2024: জুন মাসে এই দিনে মহেশ নবমী পালিত হবে, জেনে নিন তারিখ, শুভ সময় এবং তাৎপর্য||মহাভারতের কথাঃ ভীম মৃত্যুর কারণে নয়… তাহলে দুর্যোধন মারা গেলেন কিভাবে?||24 ঘন্টার মধ্যে হিজবুল্লাহ কমান্ডারের মৃত্যুর প্রতিশোধ, ইসরায়েলে 200টি রকেট নিক্ষেপ||কাউকে না বলে X-এর যেকোনো পোস্টে লাইক দিন; আসছে আশ্চর্যজনক বৈশিষ্ট্য||মোদী মন্ত্রিসভার 80% মন্ত্রী স্নাতক বা অধিক শিক্ষিত, 11 জন মন্ত্রী দ্বাদশ পাস; 39% বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা

Al Qassam Brigade : আল কাসাম ব্রিগেড কী, যার সহায়তায় হামাস 3 সপ্তাহ পরেও ইসরায়েলের মুখোমুখি হচ্ছে?

Facebook
Twitter
WhatsApp
Telegram
আল কাসাম ব্রিগেড

ইসরায়েল হামাস যুদ্ধের আল কাসাম ব্রিগেড সন্ত্রাসী সংগঠন 3 সপ্তাহ পরও যুদ্ধের ময়দানে: ইসরায়েল হামাস যুদ্ধ আল কাসসাম ব্রিগেড সন্ত্রাসী সংগঠন 3 সপ্তাহ পরও যুদ্ধক্ষেত্রে:7 অক্টোবর বিশ্ব শুধু হামাসের নামই শোনেনি, এর বর্বরতার প্রমাণও দেখেছে। . সেই নিষ্ঠুরতা দেখেছি, যার নিছক কল্পনাই মানুষ কেঁপে ওঠে। ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধ নিয়ে বিশ্ব দুটি উপদলে বিভক্ত, প্রশ্ন হচ্ছে হামাস একটি সন্ত্রাসী সংগঠন নাকি তার ভূমি রক্ষাকারী সেনাবাহিনী? প্রশ্ন উঠেছে ইসরায়েলের হামলার পেছনে কার মন আছে? ইসরায়েলকে দেওয়া গভীর ক্ষতের পিছনে কে? ইসরায়েল ও হামাসের মধ্যে চলমান যুদ্ধের 21 দিন কেটে গেছে। দুই পক্ষই একে অপরের ওপর হামলা চালাচ্ছে। এদিকে, একটি নাম প্রচুর প্রবণতা করছে এবং তা হল ‘আল-কাসাম ব্রিগেড’।

আল কাসাম ব্রিগেড হল হামাসের একক যা ইসরায়েল আক্রমণ করে। শেখ আহমেদ ইয়াসিন, যিনি হামাসের ভিত্তি স্থাপন করেছিলেন, 1991 সালে এই ইউনিটটি তৈরি করেছিলেন। যে কোনো দেশের সেনাবাহিনীর মতোই হামাস তাদের নিজস্ব ৩টি ইউনিট তৈরি করেছে। এই তিনটি ইউনিট হল – সামরিক শাখা অর্থাৎ আল কাসাম ব্রিগেড, সমাজসেবা শাখা অর্থাৎ দাওয়াহ এবং হামাসের মিডিয়া শাখা, যা আল আকসা টিভি এবং আল ফাতেহ ম্যাগাজিনের কার্যক্রম পরিচালনা করে।

আল কাসাম নিজেও ইসরায়েলকে পুনরুদ্ধারের সুযোগ দেননি
অল্প জনসংখ্যা এবং আয়তন সত্ত্বেও, ইসরাইলকে খুব শক্তিশালী দেশ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ইসরায়েলের প্রযুক্তি, অস্ত্র, সামরিক সক্ষমতা ও বুদ্ধিমত্তার কোনো জবাব নেই। কিন্তু মুষ্টিমেয় কিছু হামাস সন্ত্রাসী ইসরায়েলে হামলা চালায়, যার কারণে ইসরায়েল পুনরুদ্ধারের সুযোগও পায়নি। ইসরায়েল পাল্টা জবাব দেওয়ার সময় হামাস সন্ত্রাসীরা তাদের কাজ শেষ করে ফিরে গিয়েছিল। তারা আকাশ, জল ও স্থল থেকে একযোগে আক্রমণ করেছিল। এই ভয়ঙ্কর পরিকল্পনাটি বাস্তবায়ন করেছে হামাসের সবচেয়ে ভয়ঙ্কর ব্রিগেড ‘আল কাসাম’।

7 অক্টোবর ইসরায়েলে হামলার পর সবাই হামাস নিয়ে কথা বলছে, কিন্তু হামাসের এই কর্মকাণ্ডের পেছনে লুকিয়ে আছে তিনজন, যাদের মধ্যে রয়েছে ইসমাইল হানিয়া, মোহাম্মদ দাইফ এবং মারওয়ান ইসা। এই তিন ব্যক্তি ইসরায়েলকে এক অবিস্মরণীয় ক্ষত দিয়েছেন। ইসমাইল হানিয়া হামাসের প্রধান, মোহাম্মদ দায়েফ আল-কাসাম ব্রিগেডের প্রধান এবং মারওয়ান ইসা আল-কাসাম ব্রিগেডের উপপ্রধান।

মোহাম্মদ দায়েফ বহু বছর ধরে ইসরায়েলের ‘মোস্ট ওয়ান্টেড’ তালিকার শীর্ষে রয়েছেন। 2021 সালে ইসরায়েল তাকে 7 বার হত্যা করার চেষ্টা করেছিল, কিন্তু ব্যর্থ হয়েছিল। গাজার আল কাসাম ব্রিগেডই ইসরাইলকে রক্তের অশ্রু কাঁদিয়েছে। খবরে বলা হয়েছে, ইরানের কাছ থেকে প্রাপ্ত সাহায্যের পর হামাস শুধু ভূগর্ভস্থ বাঙ্কারই তৈরি করেনি বরং মাটির নিচে কারখানাও তৈরি করেছে, যেখানে রকেট ও ড্রোন তৈরি করা হয় ব্যাপক হারে। হামাস যেসব অস্ত্র তৈরি করে না সেগুলো সমুদ্রপথে পাচার করা হয়।

সর্বোপরি ইসরাইল কেন হামাসকে নির্মূল করতে পারছে না?
যদি রিপোর্ট বিশ্বাস করা হয়, আল কাসাম ব্রিগেডের কারণেই হামাস গত 21 দিন ধরে ইসরায়েলের মুখোমুখি হচ্ছে। আল কাসামে 30  হাজার যোদ্ধা রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে নাকাব ফোর্স, নেভাল কমান্ডো, রকেট ব্রিগেড, আন্ডারগ্রাউন্ড টিম এবং এয়ার উইং। আল-কাসামের সবচেয়ে বিশেষ ‘রকেট ব্রিগেড’-এর মধ্যেও অনেক ব্রিগেড রয়েছে – যেমন রাফাহ ব্রিগেড, খান ইউনিস ব্রিগেড, সেন্ট্রাল ব্রিগেড, গাজা ব্রিগেড এবং উত্তর গাজা স্ট্রিপ ব্রিগেড, যারা যুদ্ধ করছে।

আল কাসাম হল সেই ব্রিগেড যেটি 1994 থেকে 2000 সাল পর্যন্ত ইসরায়েলিদের বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি বড় হামলা চালিয়েছিল। আল কাসাম একটি সুসংগঠিত সংস্থার মতো কাজ করে। বলা হয়ে থাকে যে, যেভাবে একটি দেশের সেনাবাহিনী একটি অপারেশন চালানোর জন্য কাজ করে, ঠিক একইভাবে আল কাসামও একটি কৌশল তৈরি করে, যার পরে তার যোদ্ধারা তা কার্যকর করে। আল কাসাম তার উইংকে 4টি ইউনিটে বিভক্ত করেছে। এই চারটি ইউনিটকে কঠোর প্রশিক্ষণ দেওয়া হয় যাতে তারা যেকোনো পরিস্থিতিতে লড়াই করতে পারে।

আল কাসামের ক্ষেপণাস্ত্র ইউনিট অত্যন্ত দক্ষ, তবে এয়ারবোর্ন এবং ড্রোন ইউনিটগুলি এই যুদ্ধের জন্য বিশেষভাবে প্রস্তুত ছিল। 7 অক্টোবর হামাস যখন ইসরায়েলে হামলা চালায়, কিছু ছবিতে হামাস যোদ্ধাদের প্যারাগ্লাইডার থেকে গুলি চালাতে দেখা যায়। এই যোদ্ধারা ছিল এয়ারবর্ন ইউনিটের সন্ত্রাসী। এই যোদ্ধাদের এয়ার ফোর্স ফ্যালকন স্কোয়াড্রন ব্যাজ সহ দেখা গেছে।

আমেরিকার গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএর মতে, আল-কাসিমের যোদ্ধারা অস্ত্র তৈরি করে। তারা রকেট এবং ড্রোন ব্যবহার করে, যেগুলো তৈরিতে তাদের দক্ষতা রয়েছে। ইসরায়েলি প্রতিরক্ষা বাহিনীর মতে, আল-কাসিম ব্রিগেডের যোদ্ধারা পাইপ থেকে রকেট তৈরি করে। আইডিএফ এ সংক্রান্ত একটি ভিডিওও শেয়ার করেছে।

আল কাসাম ব্রিগেড ইসলামিক স্টেট অর্থাৎ আইএসআইএসের চেয়ে কম বিপজ্জনক নয়
হামাসের আল-কাসাম ব্রিগেডকে কুখ্যাত সন্ত্রাসী সংগঠন আইএসআইএসের চেয়ে কম বিপজ্জনক বলে মনে করা হয় না, যার সর্বশেষ উদাহরণ হল ইসরায়েলে হামাসের হামলা। এমন আক্রমণ যা নেতানিয়াহুর শক্তিশালী প্রতিরক্ষাকে ছিন্নভিন্ন করে দিয়েছে। হামাসের সামরিক শাখা এবং এর প্রভুদের সম্পর্কে তথ্যের পাশাপাশি, হামাসের কাঠামো কী?

হামাসের শীর্ষ অবস্থান পলিটব্যুরোর। পলিটব্যুরো হামাসকে নিয়ন্ত্রণ করে। পলিটব্যুরোর 15 জন সদস্য রয়েছে, যার প্রধান হলেন হামাসের সর্বোচ্চ নেতা ইসমাইল হানিয়া।
পলিটব্যুরোর নীচে রয়েছে বিদেশে প্রতিনিধিদল এবং এর সাথে শুরা কাউন্সিলও রয়েছে। হামাস শুধুমাত্র শুরা কাউন্সিলের সাহায্যে বড় সিদ্ধান্ত নেয়।
শুরা কাউন্সিলের চারটি অঙ্গ রয়েছে, যার মধ্যে একটি সংস্থা রয়েছে যা পশ্চিম তীরের বিষয়গুলি, জেলে বন্দী কর্মী, গাজা স্ট্রিপ বিষয়ক এবং ফিলিস্তিনি প্রবাসী বিষয়গুলি পরিচালনা করে।
হামাসের সামরিক শাখা আল-কাসাম ব্রিগেডের হাতে গাজা উপত্যকা সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের কমান্ড। এটি গাজা উপত্যকার মধ্যে পরিচালিত বৃহত্তম সংস্থা।

আল কাসাম কিভাবে তার ছেলেদের প্রস্তুত করে?
কিভাবে আল কাসাম তার যোদ্ধাদের প্রস্তুত করে? কে তাকে অর্থায়ন করে এবং কিসের ভিত্তিতে আল কাসাম এত ক্ষমতা পায়? প্রতিবেদনটি যদি বিশ্বাস করা হয়, হামাসের সামরিক সক্ষমতায় ইরানের একটি বড় ভূমিকা রয়েছে এবং আল-কাসসাম, যা হামাসের সেনাবাহিনী হিসাবে পরিচিত, তার বেশিরভাগই ইরান দিয়েছে। আল কাসামকে ইরান থেকে স্বল্প ও দীর্ঘ দূরত্বে আঘাত হানতে সক্ষম রকেটের মজুদও দেওয়া হয়েছে। এসব রকেটের সাহায্যে আল কাসাম সহজেই ইসরায়েলের আবাসিক এলাকাগুলোকে লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করছে।

7 অক্টোবর হামাস যখন ইসরায়েলে হামলা চালায়, তখন তারা ইসরায়েলের দিকে 5 হাজারেরও বেশি রকেট ও ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে এবং এই হামলার পর কিছু বড় প্রশ্ন দেখা দেয়। সবচেয়ে বড় প্রশ্ন ছিল, হামাস এত অস্ত্র পেল কোথায়? কারা হামাসকে এই মারাত্মক অস্ত্র সরবরাহ করছে? হামাসের কাছে এই অস্ত্রগুলো কিভাবে আসছে?

আল-কাসামের আসল শক্তি কী?
অ্যান্টি-ট্যাঙ্ক গাইডেড মিসাইল জয় করে
কর্নেট অ্যান্টি-ট্যাঙ্ক মিসাইল
ইয়াসিন আরপিজি (অ্যান্টি-ট্যাঙ্ক রকেট চালিত গ্রেনেড)
M-302 রকেট
কাসাম রকেট
আল-কুদস রকেট

খবরে বলা হয়েছে, হামাসের আল-কাসামের কাছে শুধু রকেট ও ক্ষেপণাস্ত্রই নয়, আরও অনেক মারাত্মক অস্ত্র রয়েছে। প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, হামাসও 7 অক্টোবরের হামলায় নির্দিষ্ট ধরনের ড্রোন ব্যবহার করেছে। তাই হামাস ও তার বাহিনী আল-কাসসামকে পশ্চিমা অনেক দেশ নিষিদ্ধ করেছে। ইউরোপীয় ইউনিয়ন, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, মিশর এবং যুক্তরাজ্য আল কাসাম ব্রিগেডকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে ঘোষণা করেছে। একই সঙ্গে হামাসকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে ঘোষণা করেছে আমেরিকা ও কানাডা।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর

ট্রেন্ডিং খবর