প্রভাত বাংলা

site logo
Breaking News
||হংকং এভারেস্ট এবং MDH মশলা নিষিদ্ধ||ইউক্রেনে আমেরিকা সাহায্য পাঠাতেই ক্ষুব্ধ পুতিন, বললেন এই বড় কথা||আরসিবি বনাম কেকেআর ম্যাচে নতুন মোড়, আম্পায়ার কি আরেকটি নো বল দিননি? প্রশ্ন তুলেছেন ভক্তরা||মালদ্বীপের সংসদীয় ভোটে জয়ী  চীনপন্থী নেতা মুইজ্জুর দল||ইসরায়েলি সেনা ব্যাটালিয়নের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে আমেরিকা||  আবার পাঞ্জাবের পক্ষে অদম্য হয়ে উঠেছেন রাহুল তেওয়াতিয়া, আরেকটি পরাজয়ের মুখে পড়েছে পাঞ্জাব কিংস||বসিরহাটে রাম নবমীর মিছিলে যোগ দিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নিশীথ প্রামাণিক, পাশে রেখা পাত্র||অক্ষয় তৃতীয়ার উপবাস কীভাবে শুরু হয়েছিল, জেনে নিন এর সাথে সম্পর্কিত পৌরাণিক ঘটনাগুলি||রবিবার গরমে ঝলসে গেল দক্ষিণবঙ্গ , পানাগড়কে হার মানল বাঁকুড়া||জগন্নাথ রথযাত্রা 2024 : কবে শুরু হচ্ছে জগন্নাথ রথযাত্রা ? এক ক্লিকেই জেনে নিন সব তথ্য

আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জোরপূর্বক জায়গা দখলের অভিযোগ তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে

Facebook
Twitter
WhatsApp
Telegram
জোরপূর্বক

দাসপুর: প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে জোরপূর্বক দখলের অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় এক তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে। আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা করে ওই জায়গায় বাড়িও নির্মাণ করা হচ্ছে। এমনই চাঞ্চল্যকর অভিযোগ উঠেছে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার দাসপুর ১ ব্লকের দাসপুর ২ গ্রাম পঞ্চায়েতের বেলিয়াঘাটা এলাকার স্থানীয় তৃণমূল নেতা হরিপদ বারিকের বিরুদ্ধে। বেলিয়াঘাটা এলাকার জগন্নাথ মাইতি ও তাঁর ছেলে অনুপ মাইতি অভিযোগ করেছেন, স্থানীয় তৃণমূল নেতা হরিপদ বারিক জোর করে তাদের জমি দখল করে ইটের ঘর তৈরি করছেন। এর পিছনে স্থানীয় তৃণমূল গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য মনীষা নন্দীগ্রামীর স্বামী গুরুপদ নন্দীগ্রামীর হাত রয়েছে বলেও অভিযোগ। প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ করেন জগন্নাথ মাইতি ও তাঁর ছেলে। মহকুমা শাসক এবং মহকুমা পুলিশ আধিকারিক প্রশাসনের বিভিন্ন জায়গায় লিখিত অভিযোগও করেছেন। আদালতের নির্দেশ, বাড়ি নির্মাণ কাজ বন্ধ করতে হবে। কোনো তোয়াক্কা না করেই চলছে বাড়ির নির্মাণ কাজ বলে অভিযোগ।

যদিও অভিযুক্ত স্থানীয় তৃণমূল নেতা হরিপদ বারিক সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা অভিযোগ। আমি আমার দখলকৃত জায়গায় বাড়ি যাচ্ছি। আমি প্রায় ৬০ বছর ধরে এই পদে অধিষ্ঠিত। জগন্নাথ মাইতি ও তাঁর ছেলে অনুপম মাইতি বলে আসছেন, তাঁদের পুরনো বাড়ি ভেঙে নতুন বাড়ি তৈরি হওয়ার পর থেকেই তাঁরা এখানে বসবাস করছেন। তাহলে এতদিন বলোনি কেন? আজ ষাট বছর পর তার মনে পড়ল এখানে তারও একটা জায়গা আছে। এ নিয়ে আদালতে মামলা চলছে। আদালত যা সিদ্ধান্ত নেবে তাই হবে। তৃণমূল বলছে এসব কিছুই নয়। মানুষ আমার পক্ষে, আমার গ্রাম, আমার পাড়া আমার পক্ষে। এখানে কোন গ্রাউন্ড লেভেল নেই। আমার নামে মিথ্যা অভিযোগ করা হচ্ছে।

তৃণমূল গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য মনীষা নন্দীগ্রামী এবং তার স্বামী গুরুপদ নন্দীগ্রামীর সাথে এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলেও তাদের কাছ থেকে কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। তবে দাসপুর ২ গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান ভার্নালি শাসমল ঘোড়াইয়ের সাথে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান যে বিষয়টি আদালতে বিচারাধীন। এমতাবস্থায় আদালতের দেওয়া সিদ্ধান্ত সবাইকে মেনে নিতে হবে। আমাদের আইন সর্বোচ্চ, কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়। দাসপুর ১ নম্বর ব্লকের বিডিও দীপঙ্কর বিশ্বাস ক্যামেরার সামনে এ বিষয়ে কিছু না বললেও তিনি জানিয়েছেন, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে এবং দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর

ট্রেন্ডিং খবর