প্রভাত বাংলা

site logo
Breaking News
||মেঘ বিস্ফোরণ ইটানগরে ধ্বংসযজ্ঞ, সর্বত্র দৃশ্যমান ভয়াবহ দৃশ্য; অনেক এলাকার সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন||ছত্তিশগড়ের সুকমায় আইইডি বিস্ফোরণে শহীদ ২ সেনা||Daily Horoscope: মিথুন সহ এই ৫টি রাশির জাতক জাতিকারা কাঙ্খিত অগ্রগতি পাবেন, কোন রাশির জাতকরা মন খারাপ করবেন?||NEET Scam : NEET-UG পেপার ফাঁস মামলায় প্রথম FIR নথিভুক্ত করেছে CBI||মক্কায় হজযাত্রীর মৃত্যুতে হতবাক মিশর সরকার, এত কোম্পানির বিরুদ্ধে নিল ব্যবস্থা ||24 ঘন্টার মধ্যে ইয়েমেনের হুথিদের দ্বারা দ্বিতীয় ড্রোন হামলা, এখন লোহিত সাগরে জাহাজ লক্ষ্যবস্তু||বড় ধাক্কা পেলেন বজরং পুনিয়া, আবারও সাসপেন্ড করল নাডা||আবার আকাশ আনন্দকে তার উত্তরসূরি হিসেবে বেছে নিয়েছেন মায়াবতী||ইন্দোরে বিজেপি নেতাকে গুলি করে হত্যা||আহত ফিলিস্তিনিকে জিপের সামনে বেঁধে রেখেছে ইসরায়েলি সেনা

চীনে মুসলমানদের অবস্থা খুবই খারাপ, ১৯৭৫ সালের মতো পরিস্থিতি হতে পারে?

Facebook
Twitter
WhatsApp
Telegram
চীন

চীনে মুসলমানদের অবস্থা খারাপ, এটা সত্য এবং কারও কাছে গোপন নয়। শি জিনপিংয়ের দেশ মুসলমানদের অনুভূতি বোঝে না, সে কারণে সেখানকার মুসলমানদের অবস্থা খারাপ। বিশেষ করে চীনে বিপুল সংখ্যক উইঘুর মুসলিম রয়েছে। তারা বিশেষ করে জিনজিয়াংয়ে বসবাস করে। সাম্প্রতিক একটি তদন্তে, ব্রিটেনের স্কাই নিউজ দেশের অভ্যন্তরে ইসলামিক অনুশীলনের উপর চীনের ক্রমবর্ধমান নিয়ন্ত্রণ নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। প্রতিবেদনে মুসলমানদের ওপর ক্রমবর্ধমান নিষেধাজ্ঞার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এক মুসলিম নেতা বলেন, চীনে ধর্ম মরে যাচ্ছে। ধর্মীয় কর্মকাণ্ডের ওপর চীন সরকারের আরোপিত নিষেধাজ্ঞার জন্যও তিনি দুঃখ প্রকাশ করেন।

মসজিদ ভাঙা: অনেক মসজিদ ভেঙে ফেলা হয়েছে। বিশেষ করে যেগুলি সরকারী স্থাপত্যের মান মেনে চলে না বা খুব নির্দিষ্ট বলে বিবেচিত হয়।

ধর্মীয় পোশাকের উপর নিষেধাজ্ঞা: ঐতিহ্যবাহী ইসলামি পোশাক, যেমন মাথার স্কার্ফ এবং লম্বা দাড়ি, কিছু এলাকায় নিষিদ্ধ।

ইসলামিক গ্রন্থ সেন্সর: সরকার ইসলামিক গ্রন্থও সেন্সর করেছে। চরমপন্থা বা ভিন্নমত প্রচার করার জন্য বিবেচিত হতে পারে এমন কোনো বিষয়বস্তু সরানো হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে রাষ্ট্রের বর্ণনা অনুসারে কুরআন ও অন্যান্য ধর্মীয় সাহিত্য পরিবর্তন করা।

প্রতিবেদনটি নজরদারি নেটওয়ার্কগুলির উপর আলোকপাত করে যা মুসলিম সম্প্রদায়ের উপর নজর রাখে। মুখের শনাক্তকরণ ক্যামেরা সহ উচ্চ-প্রযুক্তিগত নজরদারি ব্যবস্থা, জিনজিয়াং-এর মতো এলাকায় প্রচলিত, যেখানে উল্লেখযোগ্য উইঘুর মুসলিম জনসংখ্যা রয়েছে। এই সিস্টেমগুলি ব্যক্তিদের কার্যকলাপ এবং আচরণ নিরীক্ষণ করে, যার ফলে সরকারী প্রবিধানগুলির সাথে কঠোরভাবে সম্মতি নিশ্চিত করে।

দৈনন্দিন জীবনে প্রভাব: মুসলমানদের উপর আরোপিত বিধিনিষেধ তাদের দৈনন্দিন জীবনেও প্রভাব ফেলে। শিশুদের জন্য ধর্মীয় শিক্ষা ব্যাপকভাবে নিয়ন্ত্রিত হয়। অনেক ধর্মীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেছে।

মুসলিম জনসংখ্যার প্রতি চীনের আচরণে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। মানবাধিকার সংগঠনগুলো এই কর্মকাণ্ডের নিন্দা করেছে এবং ধর্মীয় স্বাধীনতার প্রতি অধিকতর স্বচ্ছতা ও সম্মানের আহ্বান জানিয়েছে। তবে, চীন সরকার বলেছে যে চরমপন্থা মোকাবেলা এবং জাতীয় নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এই পদক্ষেপগুলি প্রয়োজনীয়।

1975  সালের পরিস্থিতি আর নাও হতে পারে
এই সমস্ত বিধিনিষেধ দেখে মনে হয় চীনে মুসলমানদের অবস্থা 1975 সালের মতো নাও হতে পারে। প্রকৃতপক্ষে, 29 জুলাই, 1975, চীনা সেনাবাহিনী ইউনান প্রদেশের শাদিয়ানে প্রবেশ করে এবং এক সপ্তাহ ধরে গণহত্যা চালায়। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে রেড আর্মি গার্ডরা শাদিয়ানে এসে প্রচুর বিপর্যয় সৃষ্টি করেছিল। তারা মসজিদ ভাংচুর করে এমনকি শূকরের হাড়ের মালা ও মাথা ছিন্ন করে জোরপূর্বক সম্প্রদায়ের মানুষের গায়ে পরিয়ে দেয়। এই পুরো ঘটনায় 1500 থেকে 2000 মুসলমান নিহত হয়েছে বলে জানা যায়।

বাংলার খবর ,ভারত এবং বিদেশের সর্বশেষ খবর, আপডেট এবং বিশেষ গল্প পড়ুন এবং নিজেকে আপ-টু-ডেট রাখুন, Google NewsX (Twitter), Facebook-এ আমাদের অনুসরণ করুন, https://prabhatbangla.com/

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর

ট্রেন্ডিং খবর