প্রভাত বাংলা

site logo
Breaking News
||21শে জুন পর্যন্ত বাংলায় থাকবে কেন্দ্রীয় বাহিনী , ‘হিংসা’ মামলায় রাজ্যের কাছে রিপোর্টও চেয়েছে আদালত ||ধূমাবতী জয়ন্তী 2024: কেন ভগবান শিব তার নিজের অর্ধেক দেবী সতীকে বিধবা হওয়ার অভিশাপ দিয়েছিলেন?||ইতালিতে মহাত্মা গান্ধীর মূর্তি ভেঙেছে খালিস্তানিরা||এলন মাস্কের বিরুদ্ধে মহিলা কর্মচারীদের সাথে যৌন সম্পর্কের অভিযোগ||বাংলাদেশের নোবেল বিজয়ী মুহাম্মদ ইউনূসসহ অন্যদের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ||সালমান ও শাহরুখ খানকে নিয়ে বড় কথা বললেন ফরিদা জালাল||2027 সালের নির্বাচন একসঙ্গে লড়বে এসপি-কংগ্রেস, লোকসভার মতো বিধানসভায়ও কি দুই ছেলের জাদু দেখা যাবে?||আবার অরুণাচলের মুখ্যমন্ত্রী হবেন পেমা খান্ডু , সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বিজেপি বিধায়ক দলের বৈঠকে||Odisha CM Oath Ceremony : 24 বছর পর নতুন মুখ্যমন্ত্রী পেল ওড়িশা, শপথ নিলেন মোহন মাঝি||Daily Horoscope: : বৃহস্পতি নক্ষত্রের পরিবর্তনের কারণে, মেষ, কর্কট এবং তুলা রাশির জাতকদের জন্য সম্পদ বৃদ্ধির সম্ভাবনা থাকবে

শেখ শাহজাহানের জমি দুর্নীতির টাকা টিএমসি তহবিলে , চার্জশিটে উল্লেখ করেছে ইডি

Facebook
Twitter
WhatsApp
Telegram
শেখ শাহজাহান

কলকাতা: তদন্ত যতই এগোচ্ছে, ততই শেখ শাহজাহান সম্পর্কে বিস্ফোরক তথ্য প্রকাশ করছে ইডি। কেন্দ্রীয় তদন্ত গোয়েন্দা সংস্থা অভিযোগপত্রে উল্লেখ করেছে যে শাহজাহানের জমি দুর্নীতির টাকা তৃণমূলের তহবিলে পৌঁছেছিল। সন্দেশখালীর স্বঘোষিত ‘টাইগার’ শেখ শাহজাহানের বক্তব্য থেকে বিস্ফোরক তথ্য জানা গেছে। ইডি অভিযোগপত্রে আরও উল্লেখ করেছে যে শাহজাহান মাছ রপ্তানির নামে পাঁচ বছরে 198 কোটি টাকার কালো টাকা সাদা করে ফেলেছেন।

কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা সূত্রে খবর, শাহজাহানের ঘনিষ্ঠ পাঁচজন বর্তমানে ইডি-র নজরদারিতে রয়েছেন। এসবের খোঁজ চলছে। গোয়েন্দা সংস্থার দাবি, তার নামে একটি কোম্পানি খুলে টাকা পাচার করা হয়েছিল। অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে, শেখ শাহজাহানের ঘনিষ্ঠ শিবপ্রসাদ হাজরা জেলিয়াখালীতে 900  বিঘা জমি দখল করেছেন। এ প্রসঙ্গে ইডির আইনজীবী অরিজিৎ চক্রবর্তী সাংবাদিকদের বলেন, এখন পর্যন্ত তদন্তে জানা গেছে, এসকে সাবিনা মাছ রপ্তানি করে মোট 90 কোটি টাকা আয় করছেন। “এই সব টাকাই কালো টাকা নয়, তবে এর বেশিরভাগই কালো টাকা।” অপরদিকে শেখ শাহজাহানের আইনজীবী জাকির হোসেন বলেন, আমার মক্কেলকে গ্রেফতার করা হয়েছে। 24 ঘণ্টার মধ্যে আদালতে তোলা হয়নি। এটা কি বেআইনি নয়? আমি আদালতকে সিদ্ধান্ত নিতে বলেছি।” এদিকে, ইডির আইনজীবী বলেন, “আদালত তাদের দাবি খারিজ করে দিয়েছে, আদালত বলেছে যে শাহজাহানকে গ্রেপ্তার করা বা তাকে আদালতে নিয়ে যাওয়া কোনো ভুল নেই।

এদিকে, বিজেপির রাজ্যসভার সাংসদ শমীক ভট্টাচার্য বলেছেন, “ইডি অবশ্যই হাইকোর্টের নির্দেশে তদন্ত করছে।” স্বাভাবিকভাবেই উভয় পক্ষের আইনজীবী রয়েছে। এ ঘটনায় এখন রাষ্ট্রের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে। আর শাহজাহানের এই আধিপত্য সরকারের অনুমোদন ছাড়া সম্ভব ছিল না। তাই সে টাকা লুট করলেও সব টাকা হজম করতে পারেনি। কোথাও পাওয়া গেছে।”

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর

ট্রেন্ডিং খবর