প্রভাত বাংলা

site logo
Breaking News
|| জাপানে ছড়িয়ে পড়েছে মাংস খাওয়া ব্যাকটেরিয়া, এটি 48 ঘন্টার মধ্যে মৃত্যু ঘটায়||আমির খানের প্রত্যাবর্তনের জন্য প্রস্তুত হন, ‘সিতারে জমিন পর’ সম্পর্কে এই নতুন আপডেট প্রকাশিত ||হেরে যাওয়াদেরও কর্মীদের পাশে দাঁড়ানো উচিত, বার্তা দিলীপ ঘোষের||দুর্গাপুজো পর্যন্ত বাংলায় কেন্দ্রীয় সেনা রাখার আবেদন শুভেন্দু অধিকারীর ||EURO Cup 2024 : পোল্যান্ড-নেদারল্যান্ডস ম্যাচের আগে ভক্তদের কুড়াল দিয়ে আক্রমণ, অভিযুক্তকে গুলি করে পুলিশ||ইভিএম বিতর্কে নীরবতা ভাঙল নির্বাচন কমিশন, মোবাইল ওটিপির প্রশ্নে এই উত্তর দিল|| 27 মাস পর একটি বিশেষ দিনে বিশেষ সেঞ্চুরি করলেন স্মৃতি মান্ধনা||রাশিয়ার ডিটেনশন সেন্টারের বেশ কয়েকজন কর্মীকে বন্দি করেছে আইএসআইএস||রুদ্রপ্রয়াগের পর এখন পাউড়িতে মর্মান্তিক দুর্ঘটনা, খাদে গাড়ি পড়ে ; 4 মৃত… 3 জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক||কেন ইভিএম ব্যবহারের জেদ? ইলন মাস্কের মন্তব্যের পর অখিলেশ যাদবের প্রশ্ন

নির্বাচনের পর সংঘ প্রধান মোহন ভাগবতের প্রথম প্রতিক্রিয়া,  তুলেছেন নানা প্রশ্ন

Facebook
Twitter
WhatsApp
Telegram
মোহন ভাগবত

নির্বাচন হয়েছে, সরকার শপথ নিয়েছে, মন্ত্রীদের দপ্তরও বণ্টন হয়েছে। নির্বাচনের পর প্রথম প্রতিক্রিয়া দিলেন সংঘ প্রধান মোহন ভাগবত। কারো নাম না নিলেও ইশারায় অনেক কথাই বলেছেন। নির্বাচনে সঙ্ঘকে টেনে আনা, নির্বাচনে শৃঙ্খলা, মণিপুরে অস্থিরতা, অন্যের মতামতের প্রতি শ্রদ্ধার মতো বিষয় নিয়ে খোলাখুলিভাবে নিজের মতামত প্রকাশ করেছেন তিনি। তিনি নাগপুরে ‘রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ কর্মকর্তা বিকাশ ভার্গ-2 সমাপনী অনুষ্ঠানে’ ভাষণ দিচ্ছিলেন।

সঙ্ঘ প্রধান মোহন ভাগবত বলেছেন, নির্বাচনের ফল এসেছে। সরকারও গঠিত হয়েছে। কি হল, কেন হল, কিভাবে হল? এগুলি গণতন্ত্রের নিয়ম, সমাজ তার ভোট দিয়েছে, সংঘের লোকেরা এতে জড়ায় না। নির্বাচনে আমরা কঠোর পরিশ্রম করি। যে সেবা করে সে মর্যাদার সাথে কাজ করে। সবাই কাজ করছে তবে দক্ষতার কথা মাথায় রাখতে হবে। আমরা এমন মর্যাদার সাথে কাজ করি। মর্যাদা আমাদের ধর্ম ও সংস্কৃতি।

সঙ্ঘের মতো সংগঠনকে নির্বাচনে টেনে আনা হয়
সঙ্ঘ প্রধান বলেছেন যে সংসদ শুধুমাত্র ঐকমত্য আছে বলেই হয়। প্রতিযোগিতার কারণে এতে সমস্যা হচ্ছে। সে কারণে সংখ্যাগরিষ্ঠতার কথা বলা হচ্ছে। সঙ্ঘের মতো সংগঠনকেও নির্বাচনে টেনে আনা হয়। কী ধরনের কথা বলা হয়েছিল? এটি প্রযুক্তির সাহায্যে করা হয়েছিল। জ্ঞানার্জনের জন্য জ্ঞান ব্যবহৃত হলেও আধুনিক প্রযুক্তির অপব্যবহার করা হয়েছে। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার একটা মর্যাদা আছে।

গত 10 বছরে অনেক ভাল জিনিস ঘটেছে
তিনি বলেন, সরকার গঠিত হয়েছে। একই সরকার (এনডিএ) আবার ফিরে এসেছে। গত 10 বছরে অনেক ভাল জিনিস ঘটেছে। বিশ্ব পর্যায়ে স্বীকৃতি ভালো হয়েছে। সুনাম বেড়েছে। আমরা বিজ্ঞান ও সংস্কৃতির ক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছি কিন্তু এর মানে এই নয় যে আমরা চ্যালেঞ্জ থেকে মুক্ত। আমাদের এখনও অন্যান্য সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে হবে।

এক বছর ধরে শান্তির অপেক্ষায় মণিপুর
মোহন ভাগবত বলেন, মণিপুর এক বছর ধরে শান্তির জন্য অপেক্ষা করছে। এক বছর ধরে জ্বলছে নাকি প্রজ্বলিত হয়েছে সেদিকে নজর দিতে হবে। আমরা কেমন হতে চাই সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। সংস্কৃতি রক্ষার প্রশ্ন আছে। সবাইকে নিজেদের নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। অনেক কাজ বাকি আছে। সব কাজ সরকারকে একা করতে হবে না। আমরা সেগুলি নিয়ে আলোচনা করি কিন্তু একা আলোচনাই সবকিছু সম্পন্ন করে না।

আমাদের সমাজ বৈচিত্র্যে ভরপুর
সংঘ প্রধান বলেছিলেন যে সমাজকেও ব্যবস্থা নিতে হবে। সমাজকে নিজের পক্ষে দাঁড়াতে হবে। ফরাসি বিপ্লবের সময় ক্রোধ চরমে ছিল। রাশিয়ায় এমনটাই হয়েছে, সেখানকার সমাজে সিদ্ধান্ত হয়েছিল যে বেরিয়ে আসতে হবে। বাবা সাহেব ভীমরাও আম্বেদকর বলেছেন যে বড় পরিবর্তন হওয়ার আগে আধ্যাত্মিক জাগরণ ঘটে। সমাজ গড়ার কাজ করতে হবে। সমাজে সংস্কৃতি দরকার। আমাদের সমাজ বৈচিত্র্যে ভরপুর।

তিনি বলেন, সমাজে ঐক্য থাকতে হবে। অন্যায় হচ্ছে, তাই নিজেদের মধ্যে দূরত্ব। খুব গভীর ক্ষত আছে, তার ব্যথা। অন্যায়ের প্রতি বিরক্ত বলেই আমাদের আপন জনগণ ক্ষুব্ধ। কাছে এসে এক হওয়ার উপায় কী হবে? একমাত্র উপায় তাকে ভুলে যাওয়া। ভয় পেলে শক্ত হও।

ভাবতে হবে নবী সাহেবের ইসলাম কি?
মোহন ভাগবত বলেন, আমাদের ভাবতে হবে নবীর ইসলাম কী? ঈশ্বর আমাদের সবাইকে সৃষ্টি করেছেন। তাঁর সৃষ্ট মহাবিশ্ব নিয়ে আমাদের ভাবতে হবে। মতামত ও পদ্ধতি ভিন্ন হতে পারে কিন্তু এদেশের সকল মানুষকে আমাদের ভাই মনে করতে হবে। ধারণাগুলো ভালো কিন্তু কয়েক দশক ধরে তৈরি করা অভ্যাস সংস্কার করতে সময় লাগে। এর জন্য সংঘের একটি শাখা রয়েছে। এই জন্যই ইউনিয়ন।

সংযত হও, আমরা অশ্লীলতা চাই না
তিনি বলেন, সমাজ থেকে পাঁচটি জিনিস চাওয়া হয়েছে। এতে রয়েছে সামাজিক সম্প্রীতি, পরিবেশ, স্বনির্ভর আচরণ। আসুন আমরা ধৈর্য ধরে থাকি। আমরা অশ্লীলতা চাই না। আমাদের মাঝারি খরচের দিকে মনোযোগ দিতে হবে। অপ্রয়োজনীয় খরচ পরিহার করতে হবে। সহজভাবে বাঁচতে হবে। স্বদেশীকে কাজে লাগাতে হবে। আমাদের দেশে যা তৈরি হয় তা বাইরে থেকে নেওয়া উচিত নয়। আমাদের দেশের ব্যবস্থা, সংবিধান ও আইন মেনে চলা। একটা লাল আলোতে থামছে। সময়মত কর জমা করা। এ সব করতে হলে সপ্তাহে একবার পরিবারের সঙ্গে বসে কথা বলা উচিত।

কাজ কিন্তু আমি করেছি, অহংবোধ করবেন না
সংঘ প্রধান বলেছিলেন যে আমাদের ঐতিহ্য বিশ্বের প্রয়োজন। এতে বিশ্বে স্বস্তি আসবে। আমাদের জীবনও হবে অর্থবহ। সংঘের শাখায় কী হয় তা দূর থেকে জানা যায় না। আপনাকে এতে অংশগ্রহণ করতে হবে। সংঘের স্বেচ্ছাসেবকরা অনেক কিছু করে। জীবনের এমন কোনো ক্ষেত্র নেই যার জন্য এই স্বেচ্ছাসেবকরা কাজ করেন না। কাজ করুন কিন্তু অহংকার করবেন না যে আমি এটি করেছি।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর

ট্রেন্ডিং খবর