প্রভাত বাংলা

site logo
Breaking News
||Pankaj Udhas : চলে গেলেন গজল সম্রাট পঙ্কজ উধাস, 72 বছর বয়সে পৃথিবীকে বিদায় জানালেন গজল সম্রাট||Lionel Messi : ৯২তম মিনিটে লিওনেল মেসির গোলে হার এড়ালো মায়ামি||Geeta Koda : বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন কংগ্রেস সাংসদ গীতা কোডা, বলেছেন- তাদের নীতি বা চিন্তা নেই||Nafe Singh Rathee : হরিয়ানায় আইএনএলডি নেতা নাফে সিং রাঠির হত্যার তদন্ত করবে সিবিআই, পাওয়া গেছে খুনিদের সিসিটিভি ফুটেজ||Maratha movement :মহারাষ্ট্রের  জালনায় বাস পুড়িয়ে দিয়েছে মারাঠা আন্দোলনকারীরা, তিনটি জেলায় ইন্টারনেট বন্ধ||Dhruv Jurel :পিচের মাঝখানে এমন কিছু করেন ধ্রুব জুরেল, তখনই বৃষ্টি হয়, কুলদীপ যাদবের বড় প্রকাশ||Job Scam : নিয়োগের দাবিতে রাস্তায় বঞ্চিত চাকরি প্রার্থীরা||Himanta Biswa Sarma : ‘যতদিন আমি বেঁচে আছি, আমি আসামে বাল্যবিবাহ হতে দেব না’, বিধানসভায় বললেন মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা||Sheikh Shajahan : শেখ শাহজাহানকে গ্রেপ্তারে বাধা নেই, সন্দেশখালি মামলায় নির্দেশ হাইকোর্টের||Sandeshkhali : তৃণমূলের ‘জনগর্জন’-এর দিনে সন্দেশখালিতে সভা করবে সিপিএম!

ন্যায় যাত্রা ছেড়ে দিল্লির উদ্দেশ্যে রওনা রাহুল গান্ধী, আন্দোলনকারী কৃষকদের সঙ্গে দেখা করতে পারেন কংগ্রেস নেতা

Facebook
Twitter
WhatsApp
Telegram
রাহুল গান্ধী

মঙ্গলবার (13 ফেব্রুয়ারি) ছত্তিশগড়ে কংগ্রেসের ভারত জোড়া ন্যায় যাত্রা হঠাৎ বন্ধ হয়ে যায়। অম্বিকাপুর থেকে বিশেষ বিমানে দিল্লির উদ্দেশে রওনা হয়েছেন রাহুল গান্ধী।স্থানীয় কংগ্রেস নেতারা জানিয়েছেন, পাঞ্জাব-হরিয়ানায় কৃষকদের আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে দিল্লি পৌঁছচ্ছেন রাহুল। তিনি আন্দোলনরত কৃষকদের সঙ্গে দেখা করতে পারেন। রাহুলের সঙ্গে চলে গেছেন কংগ্রেস সভাপতি মল্লিকার্জুন খাড়গেও।

সংবাদ সংস্থা এএনআই-এর খবর অনুযায়ী, বুধবার রাজ্যসভার জন্য মনোনয়ন জমা দেবেন সোনিয়া গান্ধী। তাঁর সঙ্গে উপস্থিত থাকবেন রাহুল ও খড়গেও। এ কারণেই তারা দিল্লি পৌঁছেছেন।

সূচি অনুযায়ী, কংগ্রেসের ন্যায়যাত্রা বলরামপুরের উদ্দেশ্যে রওনা হওয়ার কথা ছিল। এখানে রাতের বিশ্রাম নেওয়ার পরে, রাহুলকে আগামীকাল অর্থাৎ বুধবার ঝাড়খণ্ডের উদ্দেশ্যে রওনা হতে হয়েছিল।

আবার কবে যাত্রা শুরু হবে সে বিষয়ে কোনো তথ্য নেই। এর আগে, অম্বিকাপুরে একটি জনসভায় ভাষণ দেওয়ার সময়, রাহুল গান্ধী কৃষকদের এমএসপির আইনি গ্যারান্টি দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। রাহুল বলেছেন, কংগ্রেসের নির্বাচনী ইস্তেহারে এই বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করা হবে। কেন্দ্রে আমাদের সরকার গঠনের সাথে সাথে এটি কার্যকর করা হবে। ফসলের দাম কমলেও সরকার তার ক্ষতিপূরণ দেবে।

রাহুল গান্ধীর বক্তব্যের হাইলাইটস

ভারতে প্রথমবারের মতো এক্স-রে করা হবে
কংগ্রেসীরা বৈপ্লবিক কাজ করেছেন, সেটা সাদা বিপ্লব হোক বা সবুজ বিপ্লব। এখন যেহেতু তারা এক্স-রে ভারতে যাচ্ছেন, তাতে মোদীজির আপত্তি আছে। তারা বলেন, দেশে মাত্র দুটি বর্ণ আছে, একটি ধনী অন্যটি দরিদ্র। দেশে যখন মাত্র দুটি জাতি, তখন আপনি কীভাবে ওবিসি হলেন? যখন বর্ণ শুমারির কথা আসে, মোদীজি বলেন যে আমি মোটেও ওবিসি নই। আমাদের লড়াই আর্থ-সামাজিক অন্যায়ের বিরুদ্ধে। সেজন্য আমরা এই যাত্রা শুরু করেছি।

ভারতের জনসংখ্যার অর্ধেক অনগ্রসর শ্রেণীর অন্তর্গত।
রাহুল বলেন, দেশের অর্ধেক জনসংখ্যা অনগ্রসর শ্রেণীর। দলিত 15%, উপজাতি 8%, অনগ্রসর শ্রেণী 52%। আপনি যদি চারজনকে প্রার্থী করেন, তাদের মধ্যে তিনজন দলিত, উপজাতি এবং অনগ্রসর শ্রেণির। কিন্তু দেশের 200টি বড় কোম্পানিতে দলিত, আদিবাসী বা পিছিয়ে পড়া মানুষের কোনো অংশগ্রহণ নেই।

মিডিয়া কোম্পানির তালিকা দেখুন। এতে দলিত, আদিবাসী ও অনগ্রসর মানুষের অংশগ্রহণ নেই। হাইকোর্টের 650 জন বিচারপতির মধ্যে 33 জন আদিবাসী। বেসরকারি হাসপাতাল ও কলেজের মালিকদের মধ্যে দলিত, উপজাতি বা অনগ্রসর কেউ নেই।

ভারতে চীনা পণ্য বিক্রি
সবার পকেটে থাকা মোবাইল ফোন আজ মেড ইন চায়না। যখন মেড ইন চায়না ফোন তৈরি হয়, তখন দেশের তরুণরা তাতে চাকরি পায় না। জিএসটি এবং নোটবন্দির মাধ্যমে ছোট ব্যবসায়ীদের ধ্বংস করেছে মোদীজি। মূল্যস্ফীতি বেড়েছে।

কৃষকরা যা পাওয়ার কথা তা পাচ্ছেন না। আজ কৃষকদের পায়ে হেঁটে দিল্লি যাওয়া বন্ধ করা হচ্ছে। তাদের ওপর কাঁদানে গ্যাস ছোড়া হচ্ছে। তাকে কারাগারে রাখা হচ্ছে।

স্বামীনাথনকে ভারতরত্ন দিয়েছে বিজেপি। কিন্তু স্বামীনাথন জি যা বলেছেন তা করতে প্রস্তুত নন। স্বামীনাথন বলেছেন যে তিনি কৃষকদের এমএসপির আইনি গ্যারান্টি দেবেন। আমাদের সরকার এলে তা বাস্তবায়ন করা হবে।

প্রেম ভারতের ডিএনএ-তে রয়েছে
রাহুল বলেছিলেন যে প্রেম ভারতের ডিএনএতে রয়েছে। বিদ্বেষ নেই, কিন্তু বিজেপির লোকেরা এখানে ঘৃণা ও হিংসা ছড়াচ্ছে। এর কারণ কী এবং কেন এমন হচ্ছে? যাত্রার মাধ্যমে আমি লক্ষ লক্ষ লোককে এর কারণ জিজ্ঞাসা করেছি। এখানে লাখ লাখ মানুষের প্রতি অবিচার করা হয়েছে। যে সমাজে অবিচার থাকবে সেখানে ঘৃণা থাকবে।

মণিপুরে আগুন লেগেছে, আজ সেখানে কেউ যেতে পারবে না
প্রধানমন্ত্রী মোদি আজ পর্যন্ত মণিপুর সফর করেননি। সেখানে আগুন লেগেছে বলে সাধারণ মানুষ আজ সেখানে যেতে পারে না। তাই আমরা মণিপুরেও যাত্রা শুরু করেছি। রাজ্য ভাগ করেছে বিজেপি। পুড়ে গেছে। লোকে বলে, তুমি কন্যাকুমারী থেকে কাশ্মীর পর্যন্ত প্রেমের দোকান খুলেছ কিন্তু মণিপুর থেকে মহারাষ্ট্র এখনও বাকি। তাই আমরা মণিপুর থেকে দ্বিতীয় ভারত জোড়া যাত্রা শুরু করি।

এর আগে, সমাবেশে ভাষণ দিতে গিয়ে খড়গে বলেছিলেন যে আমাদের দল শক্তিশালী। মানুষ বাঁচলে দেশ বাঁচবে। দেশ বাঁচলে গণতন্ত্র বাঁচবে। গণতন্ত্র বাঁচলে সংবিধান বাঁচবে। এ নিয়ে কাজ করছে কংগ্রেস। মোদি শুধু ওবিসি, ধর্ম ও ঈশ্বরের নামে ভোট চান। কিন্তু এই ধর্মকে মিথ্যা বলে রাজনীতিতে আনা উচিত নয়।

দেশকে ভাগ করতে চান মোদি। মোদি শুধু ধনীদের জন্য। যে কেউ ধনীদের সাথে কাজ করে তাদের যে কোন কিছু দিতে পারে। ব্যাংক থেকে ঋণ পাচ্ছেন। কিন্তু ঋণ নিয়ে তারা দেশ ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

তারা এটা বন্ধ করতে চায় না। শুধু বক্তৃতা এবং সংলাপ দিন। তাদের নেতারা আদিবাসীদের উপর প্রস্রাব করে। তাদের কথা ও কাজ আলাদা। রাজীব গান্ধীর পর গান্ধী পরিবারের কেউ প্রধানমন্ত্রী হননি। মোদি সবসময় প্রতিশোধের মনোভাব নিয়ে কাজ করেন এবং গান্ধী পরিবারকে লক্ষ্য করেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর

ট্রেন্ডিং খবর