প্রভাত বাংলা

site logo
Breaking News
||21শে জুন পর্যন্ত বাংলায় থাকবে কেন্দ্রীয় বাহিনী , ‘হিংসা’ মামলায় রাজ্যের কাছে রিপোর্টও চেয়েছে আদালত ||ধূমাবতী জয়ন্তী 2024: কেন ভগবান শিব তার নিজের অর্ধেক দেবী সতীকে বিধবা হওয়ার অভিশাপ দিয়েছিলেন?||ইতালিতে মহাত্মা গান্ধীর মূর্তি ভেঙেছে খালিস্তানিরা||এলন মাস্কের বিরুদ্ধে মহিলা কর্মচারীদের সাথে যৌন সম্পর্কের অভিযোগ||বাংলাদেশের নোবেল বিজয়ী মুহাম্মদ ইউনূসসহ অন্যদের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ||সালমান ও শাহরুখ খানকে নিয়ে বড় কথা বললেন ফরিদা জালাল||2027 সালের নির্বাচন একসঙ্গে লড়বে এসপি-কংগ্রেস, লোকসভার মতো বিধানসভায়ও কি দুই ছেলের জাদু দেখা যাবে?||আবার অরুণাচলের মুখ্যমন্ত্রী হবেন পেমা খান্ডু , সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বিজেপি বিধায়ক দলের বৈঠকে||Odisha CM Oath Ceremony : 24 বছর পর নতুন মুখ্যমন্ত্রী পেল ওড়িশা, শপথ নিলেন মোহন মাঝি||Daily Horoscope: : বৃহস্পতি নক্ষত্রের পরিবর্তনের কারণে, মেষ, কর্কট এবং তুলা রাশির জাতকদের জন্য সম্পদ বৃদ্ধির সম্ভাবনা থাকবে

France : হিজাব পরা মহিলাকে গুলি করেছে প্যারিস পুলিশ, পুলিশকে সতর্ক করেছিলেন যে এই মহিলা

Facebook
Twitter
WhatsApp
Telegram
প্যারিস

ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের একটি মেট্রো স্টেশনে হিজাব পরা এক নারীকে গুলি করেছে পুলিশ। ‘ফ্রান্স 24’-এর রিপোর্ট অনুযায়ী- এই মহিলা পুরো হিজাব পরেছিলেন। সেখানে উপস্থিত স্থানীয় যাত্রীরা পুলিশকে সতর্ক করেছিলেন যে এই মহিলার আচরণ অদ্ভুত।

পুলিশ এই মহিলাকে ঘিরে ফেলে এবং তাকে সহযোগিতা করতে বললে সে নিজেকে উড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেয়। এ সময় তিনি ক্রমাগত ধর্মীয় স্লোগানও দিতে থাকেন। খবরে বলা হয়েছে, মহিলার অবস্থা বর্তমানে আশঙ্কাজনক এবং তাকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে আরও তথ্যের অপেক্ষায় রয়েছে।

আতঙ্কে ছিলেন স্থানীয় যাত্রীরা

ফ্রান্স প্রেস নিউজ এজেন্সি জানায়, মঙ্গলবার প্যারিসের একটি আঞ্চলিক মেট্রো স্টেশনে এ ঘটনা ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে- ওই নারী পুরো সাইজের হিজাব পরেছিলেন। এ সময় তিনি দীর্ঘ সময় ধর্মীয় স্লোগান দেন। এরপর আশেপাশের লোকজনকে নানা ধরনের হুমকি দেওয়া হয়। পুলিশকে সতর্ক করা হয়। পুলিশের দল সেখানে পৌঁছলে মহিলাকে আত্মসমর্পণ করতে বলে।

এর পর তিনি নিজেকে উড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেন। পুলিশ কোনোভাবে সেখান থেকে সাধারণ মানুষকে সরিয়ে ওই নারীকে বিচ্ছিন্ন করে। এ সময় ওই নারী নিজেকে উড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিতে থাকেন।

ওই নারী আত্মসমর্পণ না করলে পুলিশের দল তাকে গুলি করে। কিছু রিপোর্ট অনুযায়ী, মহিলাকে গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 13 অক্টোবর থেকে ফ্রান্সে একটি ‘জরুরি হামলার সতর্কতা’ রয়েছে। একই দিনে আরসাস শহরে ছুরি দিয়ে খুন করা হয় এক শিক্ষককে।

ফ্রান্সে মৌলবাদের উপর কঠোরতা
এখন ফ্রান্সের ধর্মীয় উপাসনালয়ে যে তহবিল পাওয়া গেছে তাও তদন্ত করা হবে। প্রায় দুই সপ্তাহ আগে, সরকার ফরাসি সন্ত্রাসবাদ ও মৌলবাদের ওয়াচ লিস্টের ভিত্তিতে একটি তালিকা তৈরি করেছিল। কিছু ধর্মীয় উপাসনালয়ে শিক্ষার নামে মৌলবাদী চিন্তার প্রচার করা হচ্ছে বলে বলা হয়েছিল। ফরাসি সরকার ধর্মীয় অর্থায়নের জন্য তদন্তের জন্য 2,450টি মসজিদের তালিকা করেছে।

ফ্রান্স তার দেশে সন্ত্রাস দমনে কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছে। রাজনৈতিক আশ্রয়ের নামে ফ্রান্সে বসবাসরত 20 হাজারের বেশি মুসলিম মৌলবাদীকে দেশ থেকে বহিষ্কারের তালিকা তৈরি করা হয়েছে। সম্প্রতি এক শিক্ষকের ছুরিকাঘাতে মৃত্যুর পর এই পদক্ষেপ নিয়েছে ফ্রান্সের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এতে অভিযুক্ত যুবক মুসলিম মৌলবাদে উদ্বুদ্ধ হয়।

মৌলবাদ প্রচার

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মনে করে, রাশিয়াসহ পূর্ব ইউরোপের দেশগুলো থেকে বিপুল সংখ্যক মানুষ আশ্রয় নেওয়ার নামে ফ্রান্সে বসতি স্থাপন করছে। তারা ফ্রান্সের গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার অন্যায় সুবিধা নেয় এবং মৌলবাদকে প্রচার করে।

ফ্রান্স 2017 থেকে 2021 সালের মধ্যে সাত লাখ মানুষকে আশ্রয় দিয়েছে। এর মধ্যে ছয় লাখ পাকিস্তান, সিরিয়া, লিবিয়া, মরক্কো ও ক্রোয়েশিয়ার। এখন সরকার প্রতি বছর আশ্রয়প্রার্থী মানুষের সংখ্যা গড়ে এক লাখ থেকে ৭৫ হাজারে নামিয়ে আনার ঘোষণা দিয়েছে।

স্কুলে সম্পূর্ণ বোরকা নিষিদ্ধ
মাত্র দুই মাস আগে সরকারি স্কুলে মেয়েদের আবায়া পরা নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয় ফ্রান্স। ফ্রান্সের শিক্ষামন্ত্রী গ্যাব্রিয়েল অ্যাটল টিভি চ্যানেল টিএফ1-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন যে আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে সরকারি স্কুলে আবায়া পরা হবে না। আবায়া হল এক প্রকার পূর্ণ বোরকা।

তিনি বলেন, ক্লাসে গেলে পোশাক দেখে আপনার ধর্মীয় পরিচয় নির্ধারণ করা উচিত নয়। ফরাসি স্কুলগুলিতে আবায়া পরা নিয়ে কয়েক মাস ধরে বিতর্কের পর এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, যেখানে মহিলাদের হিজাব পরা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

2010 সালে নেকাব নিষিদ্ধ করা হয়েছিল
ফ্রান্স 2004 সালে স্কুলে মাথার স্কার্ফ এবং 2010 সালে জনসমক্ষে পুরো মুখোশ পরা নিষিদ্ধ করেছিল। এ কারণে ফ্রান্সে বসবাসকারী 50 লাখ মুসলমানের মধ্যে এখনো ক্ষোভ বিরাজ করছে। ফরাসি সরকারি স্কুলে বড় ক্রস, ইহুদি কিপা এবং ইসলামিক হেডস্কার্ফও অনুমোদিত নয়।

Read More  :  Israel Gaza War : ইহুদি শিশুদের হত্যায় বিশ্ব নীরব, এর উদ্দেশ্য ইসরায়েল ও আমেরিকাকে ধ্বংস করা, বলেছে ইসরায়েল

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর

ট্রেন্ডিং খবর