প্রভাত বাংলা

site logo
Breaking News
||ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত,  করা হয়েছে জরুরি অবতরণ||পাঞ্জাবকে ৪ উইকেটে হারিয়ে হায়দরাবাদ: পয়েন্ট টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে পৌঁছেছে হায়দরাবাদ||অধীর সম্পর্কে খড়গের মন্তব্যে ক্ষুব্ধ বাংলার কর্মীরা, পোস্টারে কালি|| কেন রাজনীতি থেকে অবসর নিলেন ব্রিজ ভূষণ শরণ সিং?||Horoscope Tomorrow :  বৃষ, সিংহ, মকর, মীন রাশির মানুষ প্রতারিত হতে পারেন, জেনে নিন আগামীকালের রাশিফল||আইপিএল 2024 এর মধ্যে স্টার স্পোর্টসের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ করেছেন রোহিত শর্মা ||অনন্যা পান্ডেকে নিয়ে ‘গ্লো অফ ব্রেকআপ’? অভিনেত্রীর সাহসী ছবি নিয়ে ঝড়||তারক মেহতার সোধির প্রত্যাবর্তন নিয়ে প্রযোজক অসিত মোদির প্রতিক্রিয়া ||গরুড় পুরাণ: মৃত্যুর পরে কি আত্মাদের চলতে হয়? জেনে নিন এর রহস্য||মুসলিম ভোট পেতে সাধুদের অপমান করছেন মুখ্যমন্ত্রী, মমতাকে আক্রমণ করলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী

Pakistan Election : 11 ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানে নির্বাচন,  সুপ্রিম কোর্টকে জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন

Facebook
Twitter
WhatsApp
Telegram
পাকিস্তান

পাকিস্তানে আগামী 11ফেব্রুয়ারি সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশন (ইসিপি) বৃহস্পতিবার 2 নভেম্বর সুপ্রিম কোর্টে এই তথ্য দিয়েছে। তবে এসব নির্বাচন অক্টোবরের শেষ সপ্তাহ থেকে নভেম্বরের মধ্যে হওয়া উচিত ছিল।

নির্বাচন পেছানোর কারণ হিসেবে সীমানা নির্ধারণকে উল্লেখ করেছে ইসিপি। তার মতে, আদমশুমারি ও সীমানা নির্ধারণের কারণে জানুয়ারিতেও নির্বাচন করা কঠিন। তাই ফেব্রুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহে 11তারিখে এগুলো পরিচালিত হবে। এর সময়সূচী প্রকাশ করা হয়নি।পহেলা নভেম্বর তত্ত্বাবধায়ক প্রধানমন্ত্রী আনোয়ার-উল-হক কাকার গণমাধ্যমকে বলেছিলেন যে কারও নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে বাধা নেই। তিনি কারাবন্দী সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) এর কথা উল্লেখ করছিলেন।

সুপ্রিম কোর্টের চাপের পর তারিখ ঘোষণা

সংবিধান অনুযায়ী পাকিস্তানে সাধারণ নির্বাচন অক্টোবর বা নভেম্বরের শেষ সপ্তাহে হওয়া উচিত ছিল। আগস্টে শাহবাজ শরীফ সরকারের মেয়াদ শেষ হওয়ার 90 দিনের মধ্যে নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল। এর দায় ছিল তত্ত্বাবধায়ক সরকার ও নির্বাচন কমিশনের ওপর। যাইহোক, এই ঘটবে না।

ইসিপি প্রথমে ইসলামাবাদ হাইকোর্ট এবং পরে সুপ্রিম কোর্টকে জানিয়েছে, রাষ্ট্রপতিকে বলার পাশাপাশি আদমশুমারি ও সীমানা নির্ধারণের কারণে নির্বাচন করতে সময় লাগবে। আদালতের চাপ বাড়ার পর জানুয়ারিতে নির্বাচন হবে বলে জানানো হয়।

এরপর সুপ্রিম কোর্টে বহু পিটিশন দাখিল হয়। নতুন প্রধান বিচারপতি কাজী ফয়েজ ঈসা নির্বাচন কমিশন ও সরকারকে কবে নির্বাচনের তারিখ জানাবেন, জানতে চেয়েছেন। এ জন্য দুই দিন সময় দেওয়া হয়েছে। এরপর বৃহস্পতিবার (2 নভেম্বর) নির্বাচন কমিশনের আইনজীবীরা সুপ্রিম কোর্টের তিন বিচারপতির বেঞ্চে হাজির হয়ে জানান, আগামী 11 ফেব্রুয়ারি নির্বাচন হবে।

প্রস্তুতি সময় লাগবে
সুপ্রিম কোর্টে ইসিপির আইনজীবী সজিল স্বাতী বলেন- সীমানা নির্ধারণের কাজ দ্রুত গতিতে চলছে এবং আশা করা হচ্ছে 30 জানুয়ারির মধ্যে শেষ হবে। এ ছাড়া ততক্ষণে আমরা বাকি প্রস্তুতিও শেষ করব। আমাদের চেষ্টা রবিবার নির্বাচন অনুষ্ঠানের। তাই আমরা 11 ফেব্রুয়ারি তারিখ নির্ধারণ করেছি।

ইসিপির আইনজীবীর কথা শুনে বেঞ্চ নিজেদের মধ্যে পরামর্শ করেন এবং পরে বলেন- প্রধান নির্বাচন কমিশনারকে রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠান, যাতে তিনিও তার পরামর্শ নিতে পারেন। তারপর একটি সুনির্দিষ্ট উত্তর দিয়ে আমাদের কাছে ফিরে যান। আজ সন্ধ্যায় এ বিষয়ে পরবর্তী শুনানি হবে।

নওয়াজের প্রত্যাবর্তনে পাল্টে যায় পাকিস্তানের রাজনৈতিক দৃশ্যপট

গত বছরের এপ্রিলে ইমরান খানের সরকারের পতন হয়। এরপর প্রধানমন্ত্রী হন শাহবাজ শরীফ। 14 আগস্ট তার জোট সরকারের মেয়াদ শেষ হয়। এরপর আনোয়ার-উল-হক কাকারের নেতৃত্বে তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠিত হয়। এখন পর্যন্ত তিনি ক্ষমতায় আছেন।

ইমরান খানের জনপ্রিয়তা বাড়তে থাকে এবং তিনি তার সরকার পতনের জন্য সেনাবাহিনীকে দায়ী করতে থাকেন। এদিকে, 9 মে পাকিস্তানে ব্যাপক সহিংসতা হয়। সেনাবাহিনী এবং আইএসআই-এর গুরুত্বপূর্ণ ঘাঁটিগুলিকে লক্ষ্যবস্তু করা হয়েছে।

ইমরান খানের বিরুদ্ধে প্রায় ১২০টি মামলা ছিল। আগস্টে তিনি দুর্নীতির মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে এখনও কারাগারে রয়েছেন। খানের বিরুদ্ধে অন্তত চারটি মামলা রয়েছে, যে কারণে তার জামিন পাওয়া খুবই কঠিন। তবে তত্ত্বাবধায়ক পিএম কাকার বলেছেন, কারও নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে বাধা নেই। ধারণা করা হচ্ছে, তিনি ইমরানের দল পিটিআই-কে উল্লেখ করছিলেন।

কিছু গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল যে নওয়াজ শরীফ চার বছর পর দেশে ফিরে আসার অর্থ হচ্ছে তিনি সেনাবাহিনীর সাথে শান্তি স্থাপন করেছেন। ইমরানের দলকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা থেকে বাধা দেওয়া হবে এবং নওয়াজের দল পিএমএল-এন বিজয়ী হবে বলেও ব্যাখ্যা করা হচ্ছে। এর জন্য, একই পদ্ধতি অবলম্বন করা যেতে পারে, যা 2018 সালে পিটিআই-এর জন্য ব্যবহার করা হয়েছিল।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর

ট্রেন্ডিং খবর