প্রভাত বাংলা

site logo
Breaking News
||EURO 2024 : তুরস্ককে হারিয়ে রাউন্ড অফ 16-এ যোগ্যতা অর্জন করেছে পর্তুগাল ||রেকর্ড গড়লেন হার্দিক পান্ডিয়া , এই কীর্তি করতে পারেননি কোনও ভারতীয় অলরাউন্ডার||প্রদীপ সিং খারোলা কে? NEET, UGC-NET পরীক্ষা বিতর্কের মধ্যে এনটিএর কমান্ড কে পেলেন?||NEET Scam : NEET-UG পেপার ফাঁসের তদন্ত সিবিআই-এর হাতে তুলে দিল শিক্ষা মন্ত্রক||EURO 2024 : চেক প্রজাতন্ত্রের সাথে 1-1 ড্র করে প্রথম পয়েন্ট অর্জন করেছে জর্জিয়া ||NEET-PG পরীক্ষা স্থগিত, পরীক্ষার এক দিন আগে নির্দেশ জারি||NEET Scam :NEET অনিয়ম নিয়ে বড় অ্যাকশন, পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হল সুবোধ কুমারকে দোষারোপ, NTA-এর নতুন ডিজি হলেন প্রদীপ কুমার|| বিশ্বকাপে স্বর্ণপদক জিতেছে ভারতীয় মহিলা কম্পাউন্ড তীরন্দাজ দল, র‌্যাঙ্কিং-এও নম্বর-1 ||দিল্লির জল সঙ্কট, এলজি বলেছেন – AAP-এর অভিযোগ এবং পাল্টা অভিযোগের একই গল্প||ভারতীহরিকে প্রোটেম স্পিকার করার বিরুদ্ধে কংগ্রেসের বিরোধিতা, রিজিজু বললেন- মিথ্যার একটা সীমা থাকে

থেমে নেই দিলীপ ঘোষ! ‘কাঠিবাজি’ মন্তব্যের পর নতুন পোস্ট, তিন কথায় দলের জন্য কী বার্তা?

Facebook
Twitter
WhatsApp
Telegram
দিলীপ ঘোষ

লোকসভা নির্বাচনে তিনি পরাজিত হন। তাকে চেনা মেদিনীপুর কেন্দ্র থেকে সরিয়ে বর্ধমান-দুর্গাপুরে করা হয়েছে। সেখানে প্রাক্তন ক্রিকেটার ও তৃণমূল প্রার্থী কীর্তি আজাদকে বড় ব্যবধানে হারের মুখে পড়তে হয়েছে। পরাজয়ের পর থেকে দিলীপ ঘোষ অপরাজেয়। একের পর এক মন্তব্য করছেন বিজেপির প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি। এক্স (এক্স-টুইটার) হ্যান্ডেল শনিবার একটি নতুন পোস্ট করেছে। তিন শব্দের পদটি দলের ইঙ্গিত বলে মনে করছেন অনেকে।

প্রাক্তন দিলীপ শনিবার সকালে ছবিটি পোস্ট করেছেন, যেখানে মাত্র তিনটি শব্দ ছিল – ‘ওল্ড ইজ গোল্ড’। যার বাংলায় অনুবাদ হলো- ‘পুরানো জিনিস সোনার মতো দামী।’ এই পোস্ট দিয়ে আর একটি শব্দও নষ্ট করেননি দিলীপ।

এর আগে নির্বাচনে হেরে দলের মধ্যেই ছুরিকাঘাতের অভিযোগ তুলেছিলেন দিলীপ। তিনি স্পষ্টভাবে বলেছিলেন, “সবাই জানে যে আমাকে লাঠির সাহায্যে মেদিনীপুর থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল!” তিনি আরও দাবি করেছিলেন যে তাঁর বিরুদ্ধে একটি “ষড়যন্ত্র” করা হয়েছিল। সরাসরি কারো নাম নিতে না চাইলেও দলের সমস্যা তার মন্তব্য থেকে সহজেই বোঝা যায়। দিলীপ বললেন, আমি হারিনি। হেরেছে বিজেপি। আমার পরাজয়ের কারণে মেদিনীপুর আসনটি হাতছাড়া হলো! আগে দেখা যাক দল কী সিদ্ধান্ত নেয়, তারপর আমার সিদ্ধান্ত নেব।

দিলীপ আরও বলেন, “প্রার্থী তালিকা তৈরির আগে দল আমাকে কিছু জিজ্ঞেস করেনি। দায়িত্বশীলরাই এর কারণ বলতে পারবেন। সেখানে (মেদিনাপুর) সংগঠন প্রস্তুত ছিল। মেদিনীপুর থেকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলে লক্ষাধিক ভোটে জয়ী হতেন বলেও দাবি করেন তিনি। হারের পর দিলীপ অটল বিহারী বাজপেয়ীর একটি উদ্ধৃতি পোস্ট করেন। তাতে লেখা ছিল, ‘আমার একটা কথা মনে রাখবেন, দলের একজন পুরনো কর্মীকেও ভাঙতে দেওয়া যাবে না।’ প্রয়োজনে নতুন কর্মকর্তাদের মধ্যে 10 জনকে আলাদা করতে হবে। কারণ পুরনো অফিসাররাই আমাদের জয়ের ‘গ্যারান্টি’। অটলের বক্তব্য ‘সময়োপযোগী’ বলেও দাবি করেছেন দিলীপ।

দিলীপ কারো নাম না নিলেও তার সমর্থকরা স্পষ্টতই বিরোধী নেতা শুভেন্দু অধিকারীর দিকে আঙুল তুলছেন। তাঁর দাবি, দিলীপের তৈরি মেদিনীপুরের জমি তাঁর প্রিয় প্রার্থীর (অগ্নিমিত্র পাল) হাতে তুলে দিতে চেয়েছিলেন শুভেন্দু। সেই কারণেই আসানসোলের বিধায়ককে মেদিনীপুরে নিয়ে আসা হয়। কিন্তু অগ্নিমিত্রাও জিততে পারেননি। দিলীপের চলে যাওয়ায় দলেরও বড় ক্ষতি হল।

শুভেন্দু বিধানসভা নির্বাচনের আগে 2020 সালের ডিসেম্বরে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। সরকার গঠনের পর তিনি বিরোধী দলের নেতার পদও পান। সেই সময় আরও অনেক নেতা তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যোগ দেন। ফলে দলের মধ্যে নতুন ও পুরাতনের বিভাজন স্পষ্ট হয়ে উঠছিল। শুরু থেকেই পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি সংগঠন গড়ে ওঠা পুরনোদের মধ্যে দিলীপ ছিলেন। যোগ ও নন্দীগ্রামে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে হারানোর পর দলে শুভেন্দুর গুরুত্ব বেড়েছে। কিন্তু লোকসভা নির্বাচনে পরিসংখ্যান মেলাতে পারেননি শুভেন্দু। বিজেপি রাজ্যে মাত্র 12টি আসন পেয়েছে, যা গতবারের তুলনায় অনেক কম। অনেকের মতে, হারের পর দিলীপের চাপা ক্ষোভ বেরিয়ে আসছে। জনপ্রিয় তিনটি শব্দ পোস্ট করে দলকে হয়তো আবারও মনে করিয়ে দিয়েছেন, তিনি বৃদ্ধ, তিনি সোনার মতো মূল্যবান।

পরাজয়ের পর কয়েকদিন নিজেকে গৃহবন্দী করে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন দিলীপ। রাজনীতিতে আসার পর এই প্রথম তিনি নির্বাচনে হেরেছেন। তবে তিনি কোনো দ্বিধা ছাড়াই বলেছেন, দলের সিদ্ধান্তের জন্য অপেক্ষা করবেন এবং তারপর সিদ্ধান্ত নেবেন। ভবিষ্যতে তিনি কী পদক্ষেপ নেন তা কেবল ভবিষ্যতই বলে দেবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর

ট্রেন্ডিং খবর