প্রভাত বাংলা

site logo
Breaking News
||ইংলিশ চ্যানেল পার হতে গিয়ে শিশুসহ পাঁচজনের মৃত্যু, সৈকতে পাওয়া গেছে মৃতদেহ ||এখন এই দলের খেলা নষ্ট করতে পারে RCB, প্লে-অফে সংকট হতে পারে||বিশ্ববিদ্যালয় আইন সংশোধনী বিল স্বাক্ষর না করায় রাজ্যপালের বক্তব্য শুনতে নোটিশ জারি করল সুপ্রিম কোর্ট||Horoscope Tomorrow : মেষ, কর্কট, তুলা রাশির শত্রুদের থেকে সাবধান, জেনে নিন সব রাশির রাশিফল||Airtel নিয়ে এল শক্তিশালী প্ল্যান, 184টি দেশে কাজ করবে আনলিমিটেড ইন্টারনেট, দীর্ঘ আলোচনা হবে||T20 World Cup 2024 স্কোয়াডে দিনেশ কার্তিককে জায়গা দেওয়া কতটা সঠিক, জেনে নিন পরিসংখ্যান||‘এর জন্য আপনাকে মূল্য দিতে হবে…’, প্রধানমন্ত্রী মোদীর বক্তব্যে বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়||Shahrukh khan return as don: সুহানা খানের কিং-এ ডন চরিত্রে অভিনয় করবেন শাহরুখ খান||14 তম তালিকা প্রকাশ করেছে বিজেপি , লাদাখ থেকে টিকিট পাননি জামিয়াং সেরিং নামগিয়াল||গান্ধী পরিবারের মতো নিজের দলকে ভোট দিতে পারবে না উদ্ধব-কেজরিওয়ালের পরিবার

নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, ১ এপ্রিল বাংলায় আসছে কেন্দ্রীয় বাহিনীর আরও ২৭টি কোম্পানি 

Facebook
Twitter
WhatsApp
Telegram
নির্বাচন কমিশন

ভোটের তারিখ ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, নির্বাচনে কোনো বিশৃঙ্খলা চান না। তাই ভোটের সময় নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কোন রাজ্যে কতজন কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা হবে তা আগেই জানিয়েছিল কমিশন। সবচেয়ে বেশি সংখ্যক কেন্দ্রীয় বাহিনী পশ্চিমবঙ্গে বরাদ্দ করা হয়েছে। তারা ধাপে ধাপে রাজ্যে আসছেন। নির্বাচন কমিশনের মতে, এপ্রিলের শুরুতে কেন্দ্রীয় বাহিনীর আরও 27 টি কোম্পানি পশ্চিমবঙ্গে আসবে।

1 এপ্রিল পর্যন্ত কেন্দ্রীয় বাহিনীর 27 টি কোম্পানির মধ্যে CRPF (সেন্ট্রাল রিজার্ভ পুলিশ ফোর্স) এর 15টি কোম্পানি, BSF (বর্ডার গার্ড ফোর্স) এর পাঁচটি কোম্পানি এবং CISF (সেন্ট্রাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল সিকিউরিটি ফোর্স) এর সাতটি কোম্পানি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। , কমিশন রাজ্যে কেন্দ্রীয় বাহিনীর এই 27 টি কোম্পানিকে কোথায় মোতায়েন করা হবে সে বিষয়ে দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে সরকারকে অনুরোধ করেছে।

কেন্দ্রীয় বাহিনীর মোট 150 টি কোম্পানি ইতিমধ্যেই দুই দফায় রাজ্যে পৌঁছেছে। এগুলো প্রতিটি জেলায় পাঠানো হয়েছে। কাজও শুরু করেছেন তিনি। তারা এলাকায় টহল দিচ্ছে। কমিশন দাবি করেছে যে সাধারণ মানুষের মনোবল বাড়াতে ইতিমধ্যেই রাজ্যে কেন্দ্রীয় বাহিনী পাঠানো হচ্ছে। প্রশাসনের দাবি, জেলার বিভিন্ন থানা এলাকায় কেন্দ্রীয় বাহিনী টহল শুরু করেছে। ভোটারদের উৎসাহিত করতে পুলিশকেও সৈন্যদের নিয়ে ঘুরে বেড়াতে দেখা যায়।

বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, নির্ভয়ে ভোট দিতে ভোটারদের কাছে আবেদন জানাচ্ছেন সৈন্যরা। এমনকি কোনো সমস্যা হলে জানাতেও বলেছেন। 1 মার্চ থেকে কয়েক দফায় রাজ্যে কেন্দ্রীয় বাহিনী এসেছে। প্রথম পর্যায়ে কেন্দ্রীয় বাহিনীর 100টি কোম্পানি এসেছে। ৭ মার্চ দ্বিতীয় দফায় আরও 50 জন সৈন্য এসেছে। প্রতিদিনই বিভিন্ন এলাকায় তাদের রুটমার্চ করতে দেখা যায়। নির্বাচনের আগে, কেন্দ্রীয় সেনারা বিভিন্ন কেন্দ্রে ভোটারদের নিরাপত্তার বার্তা দিতে রুট মার্চ পরিচালনা করছে।

জানিয়ে রাখি এই রাজ্যে সাত দফায় নির্বাচন হবে। 19 এপ্রিল, কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার, জলপাইগুড়িতে প্রথম দফার ভোট হবে। যদিও নির্বাচন ঘোষণার আগেই রাজ্যে কেন্দ্রীয় বাহিনী আসতে শুরু করেছে। নির্বাচন কমিশনের এই পদক্ষেপকে ‘অভূতপূর্ব’ বলে মনে করছেন অনেকে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো খবর

ট্রেন্ডিং খবর