প্রভাত বাংলা

site logo
ISF

ISF : ‘যেখানে আন্দোলন সেখানে আটকাবে ’, হুঙ্কার আইএসএফের

ISF : ভাঙড় জুড়ে পুলিশের অভিযান। এরই মধ্যে পুলিশ প্রশাসনকে আগাম সতর্কবার্তা দিয়েছে আইএসএফ। নওশাদের দল অভিযোগ করেছে যে পুলিশ তাদের সমর্থকদের কলকাতায় পৌঁছাতে বাধা দিতে ব্যারিকেড দিচ্ছে। তবে পুলিশের দাবি, শনিবারের ঘটনার পুনরাবৃত্তি এড়াতে ভান্ডার জুড়ে কঠোর নিরাপত্তা বলয় তৈরি করা হয়েছে। আইএসএফ-এর এক নেতা হুঁশিয়ারি দিয়েছেন, যেখানেই অবরোধ করা হবে সেখানেই অবস্থান কর্মসূচি হবে।

ভানারদ বিধায়ক নওশাদ সিদ্দিকীর মুক্তির দাবিতে কলকাতায় নাগরিক সমাজের মিছিল। মিছিলে যোগ দিতে ভান্ডার থেকে অনেকের যাওয়ার কথা। আইএসএফ-এর তরফে জানানো হয়েছে, সেই কারণেই কাশিপুর থানার চণ্ডীপুর, বৈরামপুর, ঘটকপুকুর, শ্যামনগর, বাগডোবা গাছতলা এলাকায় পুলিশ পিকেট বসানো হয়েছে। নাক চেকিং চলছে। বারুইপুর পুলিশ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাকসুদ হাসান অবশ্য বলেছেন যে কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে এবং এলাকায় শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখতে প্রশাসন এই ব্যবস্থা নিয়েছে। অন্যদিকে, কলকাতা পুলিশের তরফে হাতিশালা ও বাসন্তী হাইওয়ে এলাকায় তল্লাশি অভিযান চলছে। অনেক জায়গা থেকে আইএসএফ কর্মীদের বিমুখ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

আইএসএফ রাজ্যের যুগ্ম সম্পাদক লক্ষ্মী হাঁসদা বলেন, “পুলিশ যেখানেই বাধা দেবে সেখানেই আন্দোলন হবে।” অনেক কর্মী-সমর্থক ইতিমধ্যেই বিভিন্ন জেলা থেকে আইএসএফের ডাকা নাগরিক সমাজের পদযাত্রায় যোগ দিতে যাচ্ছেন। লক্ষীকান্ত হাঁসদা বলেন, “শিয়ালদহে পৌঁছানোর আগেই পুলিশ থামলে শ্রমিকদের যেখানেই থামানো হবে সেখানেই বিক্ষোভ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।” পুলিশ পুলিশের কাজ করবে, আমরা আমাদের কাজ করব। আমি সকল বুদ্ধিমান ও গণতন্ত্রপ্রেমী মানুষকে মিছিলে যোগ দেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।”

Read More : Arabul Islam : আরাবুলের দাবি মানেনি দল, প্রতিবাদ মিছিলের কর্মসূচি বাতিল

প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞায় তৃণমূলের বিক্ষোভ মিছিল বাতিল করা হয়েছে। তৃণমূল নেতা আরাবুল ইসলাম বলেন, বৈঠক আপাতত স্থগিত করা হয়েছে। তার দাবির পাশাপাশি বৈঠকও হবে। তিনি আরও বলেন, ভাণ্ডে আইএসএফ-এর কোনো জনসমর্থন নেই। তারা শান্তি বিঘ্নিত করার চেষ্টা করছে। তবে মানুষ তৃণমূলের সঙ্গে আছে বলেও দাবি করেন আরাবুল।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *