প্রভাত বাংলা

site logo
High Court

Calcutta High Court : ভুল সংশোধনের জন্য এসএসসিকে সাত দিন সময় দিলেন বিচারক

Calcutta High Court : কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি বিশ্বজিৎ বসু বলেছেন, টাকার বিনিময়ে শিক্ষকের চাকরি ছেড়ে দিয়ে ছাত্রদের ভবিষ্যৎ নিয়ে খেলা হয়েছে। মঙ্গলবার তার আদালতে নিয়োগ দুর্নীতি সংক্রান্ত একটি মামলার শুনানি হয়। সেখানে বিচারক বলেন, “ইয়ার্কি হচ্ছে না! ছাত্রদের কথা না ভেবে কে চাকরি দিয়েছে তা খুঁজে বের করার সময় এসেছে। ভুল শুধরে নিতে এসএসসিকে 7 দিন সময় বেঁধে দিয়ে বিচারপতি বসু বলেন, “এসএসসি থেকে উদ্ধার হওয়া উত্তরপত্র আপলোড করতে হবে। 31 জানুয়ারির মধ্যে গাজিয়াবাদ তাদের ওয়েবসাইটে।

তদন্তকারীরা জানিয়েছেন যে গাজিয়াবাদে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের কমপক্ষে 4487 উত্তরপত্র বা ওএমআর শীট পাওয়া গেছে। বিচারপতি বোস একই উত্তরপত্র SSC ওয়েবসাইটে প্রকাশ করার নির্দেশ দিয়েছেন। একইসঙ্গে এ প্রসঙ্গে তদন্তকারী সিবিআইয়ের প্রতি তাঁর মন্তব্য, “কারা টাকা দিয়ে চাকরি পেল তা জানা দরকার। বিতর্কিত শিক্ষক-শিক্ষাকর্মীদের সরাসরি জিজ্ঞাসাবাদ করুক সিবিআই।

তবে, এই প্রথম নয় কলকাতা হাইকোর্ট এসএসসি পরীক্ষার্থীর হারানো উত্তরপত্র প্রকাশের নির্দেশ দিয়েছে। এর আগে হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ও এসএসসিকে এ বিষয়ে নির্দেশ দেন। তবে মঙ্গলবার বিচারপতি বোস স্কুল শিক্ষা পরিষদের জন্য সময়সীমা বেঁধে দেন। কমিশনের প্রতি বিচারপতি বসুর মন্তব্য, যেখানে দুর্নীতি স্পষ্ট, সেখানে এখনও এই লোকদের সরানোর পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে না কেন? তুমি কিসের জন্য অপেক্ষা করছো?”

স্কুল সার্ভিস কমিশনের অনেক প্রার্থী ইতিমধ্যেই বেআইনি নিয়োগের কারণে চাকরি হারিয়েছেন। মঙ্গলবার বিচারপতি বসু বলেন, স্টাফের অভাবে স্কুল বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় কি এই অযোগ্যদের চাকরি থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে না? যদি তাই হয়, তাহলে নতুন নিয়োগ দিতে হবে। এসএসসির কাছে তার প্রশ্ন, “যারা টাকা দিয়ে চাকরি পেয়েছেন, তাদের সরিয়ে দ্রুত নিয়োগ দিতে আপনি কতটা প্রস্তুত?” আদালত জানিয়েছে, এই মামলার পরবর্তী শুনানি হবে 8 ফেব্রুয়ারি। সেক্ষেত্রে ওই দিনই বিচারপতির প্রশ্নের জবাব দিতে পারবেন এসএসসি। তবে এর আগে আদালতের আদেশ মেনে পরীক্ষার্থীদের আসল ওএমআর শিট প্রকাশ করার কথা SSC।

Read more : Kanthi : ধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্ত কাঁথি তৃণমূলের ছাত্রনেতাকে গ্রেফতার করতে বলেছে হাইকোর্ট

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *