প্রভাত বাংলা

site logo
রাশিয়া

রাশিয়াকে ”সন্ত্রাসবাদের রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষক’ ঘোষণা করল ইউরোপীয় পার্লামেন্ট, এখন কী হবে পরবর্তী পদক্ষেপ?

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ: গত 9 মাস ধরে রাশিয়া ও ইউক্রেনের মধ্যে যুদ্ধ চলছে। এই যুদ্ধ শেষ হওয়ার নামই নিচ্ছে না। এর পরিপ্রেক্ষিতে ইউরোপীয় পার্লামেন্ট একটি ঐতিহাসিক পদক্ষেপ নেয় এবং রাশিয়াকে ‘সন্ত্রাসবাদের রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষক’ হিসেবে ঘোষণা করে। যুদ্ধের শুরু থেকেই রাশিয়াকে সন্ত্রাসবাদের রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষক হিসেবে ঘোষণার দাবি উঠছিল। এই ঘোষণার পর পরিস্থিতি কীভাবে পরিবর্তিত হয় এবং পরবর্তীতে কী হবে তা দেখা আকর্ষণীয় হবে।

ইউরোপীয় পার্লামেন্ট বলেছে যে ইউক্রেনের বিরুদ্ধে রুশ নৃশংসতা এবং বেসামরিক অবকাঠামো ধ্বংস আন্তর্জাতিক এবং মানবিক আইন লঙ্ঘন। বুধবার (23 নভেম্বর) ইউক্রেনের কর্মকর্তারা এই পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছেন। ইউক্রেন বলেছে রাশিয়া একটি সন্ত্রাসী রাষ্ট্র। তবে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের রাশিয়া লেবেল আইনত বাধ্যতামূলক নয়। তাই অবিলম্বে কোনো আইনি পরিণতি হবে না।

ইউরোপীয় পার্লামেন্ট কি বলছে?

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কিও সময়ে সময়ে এই দাবি তুলেছেন। ইউক্রেন বলেছে যে রাশিয়া ইচ্ছাকৃতভাবে ইউক্রেনের জ্বালানি অবকাঠামো, অবকাঠামো, হাসপাতাল, স্কুল, দোকান, আশ্রয়কেন্দ্র এবং অন্যান্য বেসামরিক লক্ষ্যবস্তুতে সামরিক হামলা চালিয়ে আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করেছে। এসব কর্মকাণ্ড সন্ত্রাসবাদকে উৎসাহিত করে। এর সাথে ইউরোপীয় পার্লামেন্টও তাদের 27টি সদস্য দেশকে এই সিদ্ধান্ত মেনে চলতে বলেছে।

Read More : ৪ বছর পর দিল্লি থেকে গ্রেফতার অস্ট্রেলিয়ান মহিলার খুনি

আগ্রাসন মেজাজ রাশিয়া

একদিকে ইউরোপীয় পার্লামেন্ট রাশিয়াকে ‘সন্ত্রাসবাদের রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষক’ হিসেবে ঘোষণা করেছে অন্যদিকে রাশিয়া আরও আগ্রাসনের মেজাজে রয়েছে, যা ইউক্রেনের সমস্যা বাড়িয়ে দিতে পারে। একটি প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে যে রাশিয়া বেলারুশ থেকে 100টি ক্ষেপণাস্ত্র ফিরিয়ে এনেছে। এই মিসাইলগুলো ইউক্রেনে ধ্বংসযজ্ঞ চালাতে ব্যবহার করা যেতে পারে। বর্তমানে এই যুদ্ধের শেষ দেখা যাচ্ছে না।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *