প্রভাত বাংলা

site logo
ফাটাকেস্ট

‘ফাটাকেস্ট’-এর পাল্টা দিতে হতে হবে, ” দলীয় কর্মীদের নির্দেশ দেন কেষ্টর

‘ফাটাকেস্ট’কে পাল্টা দিতে এবার ‘কেষ্টদা’ জেলে বসে দলের কর্মীদের সমালোচনা। তিনি নির্দেশ দিয়েছেন, বীরভূমে বিজেপির মিঠুন চক্রবর্তীর পাল্টা সভা করতে হবে। এত বড় সভা হওয়া উচিত যাতে পঞ্চায়েত নির্বাচনে বীরভূমে তৃণমূল ছাড়া আর কিছু না হয়।

রাজ্য বিজেপির মূল কমিটির অন্যতম সদস্য মিঠুন পঞ্চায়েত নির্বাচনের পাখির চোখ নিয়ে বাংলার রোড ট্যুরে গিয়েছিলেন। মাঠে দলের সাংগঠনিক শক্তি খতিয়ে দেখতে বীরভূমে বৈঠকের আয়োজন করতে চলেছে ‘ফটকেশ’। অনুব্রত মণ্ডলকে তৃণমূলের নেতা-কর্মীদের ‘নির্দেশনা’ দিতে শোনা গিয়েছিল পূর্ণ সমাবেশে পাল্টা সভা করার জন্য।

গরু পাচার মামলায় গ্রেফতার অনুব্রতকে শুক্রবার আসানসোলের বিশেষ সিবিআই আদালতে পেশ করা হয়। সেখানে তাঁর সঙ্গে দেখা করতে আসেন তৃণমূলের কয়েকজন নেতা-কর্মী। অনুব্রতকে পঞ্চায়েত নির্বাচনের কৌশল সম্পর্কে কিছু নির্দেশও দিতে দেখা গেছে। আদালত সূত্রে খবর, শুনানি শেষ হতেই বিচারক রাজেশ চক্রবর্তী আদালত কক্ষ থেকে বেরিয়ে যান। অনুব্রত তখনো এসেম্বলির বেঞ্চে বসে ছিল। এ সময় অনুব্রতের সঙ্গে দেখা করেন বীরভূম জেলা তৃণমূলের সহ-সভাপতি মলয় মুখোপাধ্যায় এবং তৃণমূলের একাধিক নেতা-কর্মী। কেউ কেউ তাঁকে ঠাকুর ফুলও দিয়েছিলেন। দলীয় কর্মীদের দেখে অনুব্রতকেও ‘চেনা মেজাজে’ দেখা যাচ্ছে।

তৃণমূল সূত্রে খবর, ‘কেষ্টদা’ জেলার দলের বিভিন্ন সাংগঠনিক বিষয়ে খোঁজখবর নেন। তাকে কিছু উপদেশও দিতে দেখা যায়। 27 নভেম্বর কর্মীদের কাছ থেকে মিঠুনের বীরভূমে যাওয়ার খবর শোনার পর, অনুব্রত স্পষ্ট জানিয়ে দেন যে বীরভূমে একটি বড় মিটিং হবে। অনুব্রতের সঙ্গে দেখা করা এক দলীয় কর্মীর কথায়, “আমি আমার দাদার সঙ্গে দেখা করতে এসেছি। ফুল আর লাড্ডু নিয়ে এসেছি। অনেক কিছু ঘটেছে। দাদা বলেন, এত বড় সভা হওয়া উচিত যাতে পঞ্চায়েত নির্বাচনে সব আসন তৃণমূল পায়।

Read more : দালালচক্র নিয়ে বিধানসভায় কড়া বার্তা দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

প্রসঙ্গত, গরু পাচার মামলায় শুক্রবার আসানসোল আদালতে জামিনের আবেদন করেননি অনুব্রতর আইনজীবী। বিচারক বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রতকে আরও 14 দিন জেলে রাখার নির্দেশ দেন। এ বিষয়ে পরবর্তী শুনানি আগামী 9 নভেম্বর।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *