প্রভাত বাংলা

site logo
শুভেন্দু

‘বিশ্বাসঘাতকদের থেকে সাবধান, এনআইএ এখনও বেঁচে আছে’, খেজুরিতে শুভেন্দু

রাজ্যের বিরোধী দলের নেতা শুভেন্দু অধিকারী জাতীয় তদন্ত সংস্থার (এনআইএ) উল্লেখ করে তৃণমূল নেতাদের হুমকি দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার ‘হার্মাদ মুক্ত দিবস’-এর আগে খেজুরিতে মিছিল করেছেন শুভেন্দু। সেই প্ল্যাটফর্ম থেকেই শুভেন্দু বিজেপি কর্মীদের উপর হামলার অভিযোগের বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি দেন। তাঁর বক্তব্যের ভিত্তিতে পাল্টা অভিযোগ করেছে তৃণমূল। জোরাফুল শিবিরের দাবি, কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলিকে কাজে লাগিয়ে পঞ্চায়েত নির্বাচনে জেতার কৌশল নিয়েছে বিজেপি।

বৃহস্পতিবার খেজুরিতে মিছিল করেন শুভেন্দু। সম্প্রতি এখানে এক বিজেপি কর্মীকে মারধরের অভিযোগ ওঠে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। সেই প্রসঙ্গ উল্লেখ করে শুভেন্দু বলেন, “খেজুরির শেখ ইয়াসিন ঘোলাবারের বিজেপি কর্মী সুরজকে কে মেরেছে?” আমি পুলিশকে সতর্ক করছি, যথাযথ ব্যবস্থা না নিলে ১লা তারিখে আমি খেজুরিতে আসব। শুভেন্দুকে বুঝিয়ে বলব। আরে NIA সবে কাজ শুরু করেছে। সমর মন্ডল কোথায়? দাঁড়াও, মাত্র বারোটা বাজে। সূর্য এখনো অস্ত যায় নি। বুঝেছি।” এর পর শুভেন্দুর হুঁশিয়ারি, ”মাননীয় ইয়াসিনবাবু, ডাক্তারবাবু আপনার প্রয়োজনীয় সব ওষুধ জানেন। আমি এই দায়িত্ব নিয়েছি।” পঞ্চায়েত ভোটের আগে শুভেন্দু দলীয় নেতাদের ‘চাটাই সভা’ করার বার্তা দিয়েছিলেন। খেজুরিতে ‘হার্মাদ মুক্ত দিবস’ উদযাপন করা হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, ৩ জানুয়ারি পশ্চিম ভান্নামারি গ্রামে কাঁকন করণ নামে এক তৃণমূল কর্মীর বাড়িতে বোমা বিস্ফোরণ ঘটে। এতে অনুপ দাস নামে এক তৃণমূল কর্মীর মৃত্যু হয়। আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন। শুভেন্দুর অভিযোগ, বোমা রাখার সময় বিস্ফোরণ ঘটে। এরপর স্থানীয় বিজেপি বিধায়ক শান্তনু প্রামাণিক বিষয়টি নিয়ে NIA তদন্তের দাবি জানান। বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের কাছে লিখিত আবেদনও জমা দিয়েছেন তিনি। এরপরই বিস্ফোরণের ঘটনার তদন্তভার নেয় এনআইএ। সেই ঘটনায় এনআইএ জনকা গ্রাম পঞ্চায়েত তৃণমূল প্রধান সমর শঙ্কর মণ্ডল সহ ৩ জনকে গ্রেফতার করেছে। বৃহস্পতিবার শুভেন্দুর বক্তৃতায় সেই প্রসঙ্গ উঠে আসে।

Read More : দুই বছর পর মিরিকের রাস্তায় কালো চিতাবাঘ! আতঙ্কিত এলাকাবাসী

শুভেন্দুর হুঁশিয়ারি শুনে তৃণমূলের কাঁথি সাংগঠনিক জেলা সভাপতি তরুণ মাইতির প্রতিক্রিয়া, “শুভেন্দু আজ যেভাবে প্রকাশ্যে তৃণমূল নেতাদের হুমকি দিচ্ছেন এবং কেন্দ্রীয় সংগঠনের নাম নিয়ে ভয় দেখানোর চেষ্টা করছেন। আমরা বহুদিন ধরে বলে আসছি যে বিজেপি নির্বাচনে জিততে চায়৷ কেন্দ্রীয় এজেন্সি ব্যবহার করে।আজ তা প্রমাণ হল।খেজুরির একটি মামলায় NIA তদন্তের নামে কাঁথি সাংগঠনিক জেলার অনেক তৃণমূল নেতাকে ফাঁসানোর চেষ্টা করা হচ্ছে।তারা যতই চেষ্টা করুক না কেন আমরা প্রতিটি পঞ্চায়েত ও জেলা পরিষদ গঠন করব। পঞ্চায়েত ভোটে অশান্তি সৃষ্টি করতে।”

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *