প্রভাত বাংলা

site logo
রাহু

মৃত সাপ, টিকটিকি দেখছেন? আপনার ওপর বক্র দৃষ্টি রয়েছে রাহু-কেতুর!

জ্যোতিষ শাস্ত্রে রাহু-কেতুকে ছায়াগ্রহ বলা হয়ে থাকে। কোনও ব্যক্তির কোষ্ঠীতে যখনই এই দুই গ্রহের অশুভ প্রভাব পড়ে, তখন সেই ব্যক্তির জীবন নানান সমস্যায় ঘিরে যায়। তাঁদের জীবনে সঙ্কটের ছায়া দেখা দিতে শুরু করে। কোষ্ঠীতে রাহু-কেতুর দোষ থাকলে ব্যক্তি কেরিয়ারে অসফল হয়, নানান রোগে ঘিরে থাকে, আর্থিক সমস্যা ও মানসিক অবসাদে জর্জরিত হয়ে পড়ে।

রাহু-কেতুর অশুভ প্রভাব থেকে মুক্তি পেতে কিছু জ্যোতিষ উপায় করা যেতে পারে। এর ফলে এই দুই ছায়া গ্রহের অশুভ প্রভাব কমে যায় এবং শুভ প্রভাবে বৃদ্ধি হয়। কী ভাবে বুঝবেন আপনার রাহু-কেতুর দোষ আছে? আবার কী ভাবে এর সমাধান করবেন জেনে নেওয়া যাক।

রাহু দোষ হলে এই সমস্যা দেখা দেয়

রাহু-কেতুর অশুভ প্রভাব ও দোষের কারণে শরীরে কিছু গভীর সমস্যার লক্ষণ দেখা দিতে শুরু করে। জ্যোতিষ অনুযায়ী রাহু অশুভ হলে জাতক মানসিক অবসাদের শিকার হয়। তাঁদের আর্থিক লোকসান হয় এবং বারবার সম্পত্তির ক্ষতি হতে থাকে। রাহুর দোষ থাকে যে জাতকদের ওপর তাঁদের রাগের ওপর কোনও নিয়ন্ত্রণ থাকে না। এঁরা মৃত টিকটিকি, সাপ ও পাখি দেখতে পারে। এই জাতকদের নখ দুর্বল হয়, এঁদের পরিবারে প্রায়ই কলহ বাঁধে, এমনকি আইন-আদালতের সমস্যাও ক্রমশ বাড়তে থাকে। কারও জীবনে এই লক্ষণগুলি দেখা দিতে শুরু করলে তাঁদের রাহুকে শান্ত করার উপায় করা উচিত।

কেতু দোষ হলে যে সমস্যা দেখা দেয়

জ্যোতিষ শাস্ত্র অনুযায়ী যদি কোনও ব্যক্তির কোষ্ঠীতে কেতু গ্রহ অশুভ প্রভাব বিস্তার করে তকে, তা হলে তাঁদের বিভিন্ন শারীরিক সমস্যার মুখে পড়তে হয়। তাঁদের চুল ঝরে, গাঁটে ব্যথা হয়, এমনকি চামড়ার রোগ, মেরুদণ্ডের রোগ হয়। এ ছাড়াও স্নায়ু দুর্বল হয়ে পড়ে এমন জাতকের।

রাহু-কেতু দোষ দূর করার জ্যোতিষ উপায়

১. জ্যোতিষ অনুযায়ী দুর্গার পুজো করলে রাহু-কেতুর দোষ দূর হয়। এর ফলে ব্যক্তির জীবন থেকে এই দুই ছায়া গ্রহের সমস্ত অশুভ প্রভাব কমে যায়।

২. বাড়িতে শেষনাগের ওপর নৃত্যরত কৃষ্ণের ছবি রাখুন এবং নিয়মিত তাঁর পুজো করুন। পুজোর সময় ওম নমো ভগবতে বাসুদেবায় নমঃ মন্ত্রটি ১০৮ বার জপ করবেন। এর ফলে রাহু-কেতুর প্রভাব কমতে শুরু করবে।

Read More : পিতৃপুরুষদের তুষ্ট করার শেষ সুযোগ, মহালয়ায় করুন এই সহজ উপায়, পাবেন আশীর্বাদ

৩. রাহু-কেতুর বীজমন্ত্র জপ করলেও সুফল পাওয়া যায়।

৪. কোনও দরিদ্র মেয়ে বিয়ে দিলে বা তাঁর বিবাহে সহযোগিতা প্রদান করলেও রাহু-কেতুর অশুভ প্রভাব কমতে থাকে।

৫. রবিবার মেয়েদের দই ও পায়েস খাওয়ালে কেতুর অশুভ প্রভাব কমানো যায়।

৬. কোষ্ঠীতে কেতু দোষ থাকলে নিজের সঙ্গে সবসময় একটি সবুজ রুমাল রাখবেন।

৭. রাহুর রত্ন গোমেদ ধারণ করতে পারেন। জ্যোতিষীর পরামর্শে এই রত্ন ধারণ করা উচিত।

Leave a Comment

Your email address will not be published.