প্রভাত বাংলা

site logo
হিন্দু

সর্বস্ব হারিয়ে পাকিস্তানে ফিরছেন ভারতের নাগরিক হতে চায় হিন্দুরা

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের কথায় বিশ্বাস করার জন্য প্রতিবেশী পাকিস্তানের হাজার হাজার ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ভারী মূল্য দিতে হয়েছে। এদের প্রায় সবাই হিন্দু, কিছু শিখ পরিবারও আছে। ধর্মের কারণে পাকিস্তানে নির্যাতিত এই লোকেরা ভারতের নাগরিক না হয়ে ভিসায় এদেশে এসেছে। কিন্তু বিজেপি সরকারের কাছ থেকে প্রতিশ্রুতির বন্যা ছাড়া কিছুই পাননি বলে অভিযোগ। প্রায় 600 জন ভগ্ন হৃদয় নিয়ে পাকিস্তানে ফিরে এসেছে, এবং পাকিস্তান প্রশাসন এখন তাদের বাকিদের দেখাচ্ছে – তারা যখন ভারতে গিয়েছিল তখন তারা কতটা উপদ্রব ছিল।

সীমান্ত লোক সংস্থা, পাকিস্তানের নির্যাতিত ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের পাশে দাঁড়ানো একটি সংস্থা, সম্প্রতি নাগরিকত্বের সন্ধানে ভারতে আসা পাকিস্তানি হিন্দুদের হয়রানি ও দুর্দশার কথা প্রকাশ করেছে। তারা বলছেন, যে হাজার হাজার মানুষ বিভিন্ন ধরনের ভিসা নিয়ে ভারতে এসেছেন তারা সবাই খুবই দরিদ্র। আসলে তারা শেষ সম্পদ নিয়ে ভারতে এসেছে। এরপর তারা বারবার প্রশাসনের দ্বারস্থ হলেও দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করেও কোনো উপায় পাননি। একমাত্র আশ্বাস শোনা যাচ্ছে যে বিজেপি সরকার প্রতিবেশী দেশের নির্যাতিত ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের নাগরিকত্ব দেওয়ার বিষয়ে অত্যন্ত আন্তরিক।

Read More :

সিমন্ত লোক সংস্থার সভাপতি হিন্দু সিং সোধা বলেছেন, “প্রায় সবাই স্বল্পমেয়াদী ভিসায় ভারতে এসেছেন এবং চরম দুর্দশার মধ্যে অপেক্ষায় দিন কাটিয়েছেন। অনেক পাসপোর্টের মেয়াদও শেষ হয়ে গেছে। এ অবস্থায় নয়াদিল্লিতে পাকিস্তান দূতাবাসে তারা অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন। তার পরেও অন্তত ৮০০ মানুষ মাথা নত করে পাকিস্তানে ফিরেছে। তাদের স্বপ্ন ভেঙ্গে গেছে। সোধার মতে, পাকিস্তান হাই কমিশনের কর্মীরা প্রতিটি পরিবারের নথি ঠিক করার জন্য লাখ লাখ টাকা সংগ্রহ করেছে। পাকিস্তানে ফেরার পর নাগরিকত্ব চাইতে গিয়ে ভারতে কী ধরনের হয়রানির শিকার হতে হয়েছে, সে কথাই বলা হচ্ছে। সুযোগ বুঝে পাকিস্তানের গুপ্তচর সংস্থা আইএসআই তাদের সামনে ভারত বিরোধী অপপ্রচার চালাচ্ছে। সোওয়ার্ডের মতে, অনেকে ভেবেছিলেন তারা নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) সংশোধন করার সুযোগ পাবেন। কিন্তু সরকার তড়িঘড়ি করে ২০১৯ সালে সংসদে আইন পাস করলেও এখনো তা বাস্তবায়ন করেনি। এখন তারা ভারতে না খাওয়ার চেয়ে পাকিস্তানে ফিরে যাওয়াই ভালো মনে করে। হাজার হাজারের মধ্যে প্রায় 800 ফিরে এসেছে। বাকিরা কঠোর পরিশ্রম করছে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *