প্রভাত বাংলা

site logo
সঞ্জয় রাউত

বিজেপিকে কটাক্ষ করেছেন সঞ্জয় রাউত: দেশের নাগরিকরা মুদ্রাস্ফীতির সাথে যুদ্ধ করছে, তারা লাউডস্পিকার নিয়ে চিন্তিত

মুদ্রাস্ফীতি নিয়ে কেন্দ্রকে নিশানা করলেন শিবসেনা নেতা সঞ্জয় রাউত। রাউত শনিবার বলেছিলেন যে মুদ্রাস্ফীতি দেশের সবচেয়ে বড় সমস্যা, তবে প্রধানমন্ত্রী বা অর্থমন্ত্রী কেউই এ বিষয়ে কথা বলছেন না। দেশ ও মহারাষ্ট্রের বিজেপি নেতারাও এ নিয়ে নীরব। মহারাষ্ট্র ও পাঞ্জাবের পুলিশ কী করছে তা নিয়েই তারা চিন্তিত। শিবসেনার রাজ্যসভার সাংসদ সঞ্জয় রাউত বলেছেন যে মহারাষ্ট্রে শান্তি রয়েছে, তবে কিছু নেতা দেশের পরিবেশ নষ্ট করার চেষ্টা করছেন, তবে লোকেরা তাদের উপযুক্ত জবাব দিয়েছে। এ বিষয়ে নীতিমালা থাকা উচিত।

সঞ্জয় রাউত মিডিয়া কর্মীদের সাথে কথোপকথনের সময় বলেছিলেন যে মহারাষ্ট্রে লাউডস্পিকারের সমস্যা এখন শেষ। আইন অনুযায়ী কাজ হচ্ছে। লাউডস্পিকার নিয়ে সারা দেশে সার্বজনীন নীতিমালা করতে হবে। এমএনএস প্রধান রাজ ঠাকরেকে কটাক্ষ করে তিনি বলেছিলেন যে লাউডস্পিকার ইস্যুতে হিন্দু সমাজের সবচেয়ে বেশি অসন্তোষ রয়েছে। হিন্দু সমাজে বিভাজন সৃষ্টির চেষ্টা চলছে। সঞ্জয় রাউত বলেছেন যে সমস্ত রাজনৈতিক লাউডস্পিকার পুলিশের ভয়ে অদৃশ্য হয়ে গেছে। দেশে আইনের শাসন আছে এবং সে অনুযায়ী কাজ করা হচ্ছে।

দেশের নাগরিকরা মুদ্রাস্ফীতির সঙ্গে যুদ্ধ করছে: সঞ্জয় রাউত
বিজেপিকে নিশানা করে সঞ্জয় রাউত বলেন, মুদ্রাস্ফীতি চরমে। ডিজেল-পেট্রোল, এলপিজি সিলিন্ডার সহ সব নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম দিন দিন বাড়ছে। তা সত্ত্বেও, বিজেপির একজন নেতাও মূল্যস্ফীতির মতো গুরুত্বপূর্ণ এবং সাধারণ বিষয় নিয়ে কথা বলেন না। তিনি বলেন, লাউডস্পিকার ইস্যুতে যেভাবে বিজেপি নেতারা চিৎকার ও কথা বলেন। একইভাবে জনগণের সামনে মূল্যস্ফীতি নিয়ে কথা বলা উচিত। অন্য দেশের মধ্যে চলমান যুদ্ধ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর আগ্রহ বেশি। এ নিয়ে ভক্তরা তার প্রশংসা করছেন। কিন্তু দেশের নাগরিকরা মূল্যস্ফীতির সঙ্গে যুদ্ধ করছে। শেষ পর্যন্ত তাদের কি দোষ?

Read More :

রাজ ঠাকরে এবার লাউডস্পিকার নিয়ে নতুন হুঁশিয়ারি দিলেন
অন্যদিকে মহারাষ্ট্র নবনির্মাণ সেনা প্রধান রাজ ঠাকরে নতুন হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। তিনি পুনের পুলিশ কমিশনারকে একটি চিঠি লিখেছেন, সমস্ত মসজিদের আলেমদের লিখিতভাবে এটি দিতে বলেছেন যে তারা লাউডস্পিকারের মাধ্যমে আজান দেবেন না। তিনি তার চিঠিতে আরও একবার বলেছেন যে এটি না মানলে এবার তিনি থানার সামনে লাউডস্পিকারের মাধ্যমে হনুমান চালিসা পাঠ করবেন। উল্লেখযোগ্যভাবে, রাজ ঠাকরে লাউডস্পিকারে আজানের বিরুদ্ধে খুব সোচ্চার। তিনি এটিকে ধর্মীয় নয় বরং একটি সামাজিক সমস্যা বলে অভিহিত করছেন এবং মহারাষ্ট্রের মহা বিকাশ আঘাদি সরকারকে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুসরণ করতে বলছেন। এর আগে, তিনি 3 মে পর্যন্ত আল্টিমেটাম দিয়েছিলেন এবং বলেছিলেন যে যদি মসজিদগুলিতে লাউডস্পিকারে আজান বন্ধ না করা হয় তবে এমএনএস কর্মীরা মসজিদের সামনে লাউডস্পিকারের উপর জোরে হনুমান চালিসা বাজাবেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *