প্রভাত বাংলা

site logo
ভারত

এবার ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে নতুন যুদ্ধ: এশিয়া কাপ ও বিশ্বকাপে মুখোমুখি হতে পারেন স্পিড তারকা ওমরান ও বাবর আজম

যখনই ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে সংঘর্ষ হয়, তখনই সীমান্তের দুই পাশে খেলোয়াড়দের পারফরম্যান্স রাখা হয়। ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের সঙ্গে সবার আবেগ জড়িয়ে আছে। জয় ছাড়া দুই দেশের জনগণ তাদের দলের কাছে কিছুই আশা করে না। পরে বিশ্বকাপ হারতে পারেন, কিন্তু প্রতিবেশীর কাছে হার মেনে নেওয়া হবে না।

ভারত-পাকিস্তান প্রথমে এশিয়া কাপ এবং তারপর 23 অক্টোবর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে মুখোমুখি হতে চলেছে। আইপিএলে উমরানের শক্তিশালী পারফরম্যান্স দেখে মনে করা হচ্ছে এই দুটি টুর্নামেন্টেই তিনি টিম ইন্ডিয়াতে সুযোগ পেতে পারেন। শচীন টেন্ডুলকারের সামনে শোয়েব আখতার এবং বিরাট কোহলির সামনে শাহিন আফ্রিদিকে দেখার অপেক্ষায় থাকা জনসাধারণ এবার বাবরের সামনে উমরানকে দেখতে আগ্রহী।

এমনটা হলে এখন পর্যন্ত প্রায় প্রতিটি ম্যাচেই পাকিস্তানি পেস বনাম হিন্দুস্তানিদের ব্যাটিং দেখা গেলেও এবার পরিস্থিতি পাল্টে যেতে দেখা যাবে। জম্মু এক্সপ্রেস ওমরান মালিক 154/kmph গতিতে বোলিং করছেন, যেখানে বাবর আজম বর্তমান যুগে বিশ্বের সেরা ব্যাটসম্যান হয়েছেন। দুই টুর্নামেন্টেই প্রথমবারের মতো মুখোমুখি হতে পারেন এই দুই খেলোয়াড়। স্পষ্টতই, এ উপলক্ষে মানুষের হৃদস্পন্দনও বাড়বে।

গতি এবং তপ্পা ওমরানকে টিম ইন্ডিয়ার এক নম্বর বোলার বানিয়েছে
ওমরান ধারাবাহিকভাবে প্রায় প্রতিটি বলই 150/kmph এর বেশি গতিতে বোলিং করছেন। বড় অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানরা তার মুখোমুখি হতে ভয় পায়। জনি বেয়ারস্টোর মতো একজন ইংলিশ ব্যাটসম্যান গত বছরই ওমরানের কাছে নেটে ধীরে বল করার আবেদন করেছিলেন। জম্মু এক্সপ্রেসের ভয় কেমন ব্যাটসম্যানদের মধ্যে ছড়িয়েছে তা বলার জন্য যথেষ্ট।

শুরুতে পেস থাকলেও ওমরানের বলের লাইন লেন্থ ততটা সঠিক ছিল না। ফলস্বরূপ, আড়াআড়ি শট খেলেও ব্যাটসম্যানরা তাদের বিপক্ষে রান তুলছিল।

এরপর বোলিংয়ে বড় পরিবর্তন আনেন ওমরান। এখন ওমরানের বেশিরভাগ ডেলিভারি উইকেটে। রান করার তাড়ায় ব্যাটসম্যান মিস করলে বোল্ড হওয়া নিশ্চিত। এর আগে, ভারত কোনো ফাস্ট বোলারকে 153/kmph গতিতে উইকেট নিতে দেখেনি। এখন মনে হচ্ছে সেই যুগ বদলে যাচ্ছে।

বাবর আজমের কাছ থেকে 22 কোটি পাকিস্তানিদের আশা
প্রথম দিকে বাবর আজমকে যখন বিরাট কোহলি, জো রুট এবং স্টিভ স্মিথের মতো ব্যাটসম্যানদের সঙ্গে তুলনা করা হয়, তখন মানুষ তা বিশ্বাস করতে পারেনি। পাকিস্তানে ক্রিকেটের প্রতিটি ফরম্যাটে খুব কম ব্যাটসম্যানই রাজত্ব করেছেন। এমতাবস্থায় বাবর তার ব্যাটের জোরে পুরনো ইতিহাস পাল্টে দিয়ে এখন সেই পরিবর্তনের গল্প লিখছেন ভারতের গতি তারকা ওমরান মালিক।

ভারতে শচীন টেন্ডুলকার যে মর্যাদা পেয়েছেন, সেই খ্যাতি বাবরের পাকিস্তানেও। ভারতে ম্যাচ দেখার জন্য লোকে জিজ্ঞেস করত শচীন খেলছেন, তাই না? উত্তর যদি হ্যাঁ হয়, তাহলে বাকি বিশ্ব অপেক্ষা করতে পারে। বাবরের সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য হল পেশী শক্তিতে নয়, সুন্দর টাইমিং এর ভিত্তিতে তিনি ক্রিকেটের প্রধান হয়ে উঠেছেন।

ওমরানের বিপক্ষে স্ট্রেট ব্যাট হাতে সাফল্য পেতে পারেন সময়
ব্যাটসম্যান যত বড়ই হোক না কেন, পেসারের সামনে ক্ষণিকের জন্য কাঁপতে থাকে। এমতাবস্থায় বাবর যখন ওমরানের সামনে থাকবেন, তখন তার মনে একশো ধরনের প্রশ্ন জাগছে। সেখানে ওমরানকে প্রথম বল থেকেই ক্যাচ করতে হবে। নইলে বাবরের মতো ব্যাটসম্যান বোলারের ওপর আধিপত্য বিস্তারের কোনো সুযোগই ছাড়বে না।

ঋতুরাজ গায়কওয়াড়ও ক্লাস প্লেয়ার। ওমরান যেভাবে সোজা ব্যাট হাতে খেলেছেন, বাবরও সেভাবে ব্যাট করতে পারেন এবং সম্ভবত ঋতুরাজের চেয়ে ভালো করতে পারেন। এমতাবস্থায় বাবরের সামনে উমরান কী কৌশল অবলম্বন করেন সেটাই দেখার বিষয়।

Read More :

ঋতুরাজের সামনে উমরানের প্রতিটি বাজি উল্টে গিয়েছিল
আইপিএল 2022-এর ম্যাচে, উমরানের প্রথম বলেই ঋতুরাজ এগিয়ে এসে তাকে মিড-অফের উপর দিয়ে আঘাত করেন। ওমরান তখন অফ স্টাম্পের বাইরে একটি শর্ট বল করেন এবং ঋতুরাজ তা কভারের উপর দিয়ে খেলেন। পরের বল অফ-স্টাম্পে পূর্ণ ছিল, ঋতুরাজ অর্ধ ডজন রানের জন্য লং অন পাঠান। ওমরান স্লো ডেলিভারি দ্রুত বোলিং করেন না, তবে ঋতুরাজের আক্রমণাত্মক মনোভাব দেখে তাকে এই কৌশলটি চেষ্টা করতে হয়েছিল।

তবে ভিন্ন কথা ভেবে মাঠে নেমেছিলেন ঋতুরাজ। ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টের বাইরেও এই বল পাঠান তিনি। পরের ওভারে, ওমরান আইপিএল 2022-এর দ্রুততম বলটি 154 কিমি/ঘন্টা গতিতে করেন। ঋতুরাজ এটাকে একধাপ এগিয়ে লং অনের দিকে নিয়ে গেল। তিনি ওমরানের 13 বলে 33 রান করেন কোনো হুমকি না নিয়ে এবং তার সময়ের শক্তি দেখান। পেসকে কীভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা যায় তাও জানিয়েছেন। বাবর আজম কি এতে সফল হবেন?

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *