প্রভাত বাংলা

site logo
Putin

পুতিনের কি অনুমান ছিল যে আমেরিকা ও ইউরোপ ইউক্রেনকে বাঁচাতে আসবে না?

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন যুক্তরাষ্ট্রের পরিবর্তিত নিরাপত্তা নীতি এবং ইউরোপীয় দেশগুলোর পরিস্থিতির পূর্বাভাস দিয়েছেন বলে মনে হচ্ছে। মনে হয় তারও একটা ধারণা ছিল যে ন্যাটোও এই যুদ্ধের মাঝে ইউক্রেনের সাহায্যে আসবে না। মনে হচ্ছে পুতিন গত ০২-০৩ বছর ধরে ক্রমাগত ইউক্রেনকে শুধু তিন দিক থেকে ঘিরেই রাখছিলেন না, ইউক্রেন আক্রমণ করার জন্য কোন সময় সঠিক হবে তাও অনুমান করছিলেন।

পুতিন এই সময়টা খুব সাবধানে বেছে নিয়েছেন বলেও মনে হচ্ছে। মাত্র কয়েক মাস আগে আমেরিকান বাহিনী লুণ্ঠন করে আফগানিস্তান থেকে ফিরে এসেছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন তার দেশের নিরাপত্তা নীতি পরিবর্তন করেছেন। দেখা যাচ্ছে যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যতক্ষণ পর্যন্ত তার স্বার্থ বড় হুমকির মুখে না পড়ছে ততক্ষণ পর্যন্ত সামরিক পদক্ষেপের মাধ্যমে প্রতিটি দেশে হস্তক্ষেপ করতে যাচ্ছে না।

আমেরিকা স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে যে আমেরিকা ইউক্রেনে তাদের বাহিনী পাঠাবে না, কিন্তু এরই মধ্যে আমেরিকা তার সামরিক উপদেষ্টা এবং ইউক্রেনকে সাহায্যকারী লোকজনকে সেখান থেকে সরিয়ে দিয়েছে। আমেরিকায় জনসাধারণের অনেক চাপ রয়েছে যে এখন তাদের দেশের বাইরের বিষয়ে অযথা হস্তক্ষেপ করা উচিত নয়।

ন্যাটো দেশগুলোও দেখছে একই দৃশ্য
ইউক্রেন ইস্যুতে ন্যাটোর দেশগুলোও বাইরে থেকে শুধু তমা দেখার কাজ করছে। ন্যাটো যদি কিছু করে থাকে তবে তা হলো রাশিয়া ও ইউক্রেনের সীমান্তে তার জোটের দেশগুলোতে তাদের সৈন্য ও অস্ত্র বাড়াচ্ছে।

আমেরিকা ও ন্যাটো দেশগুলোর মধ্যে বলির পাঁঠা হয়ে গেল কী?
ইউক্রেন ইউরোপীয় ইউনিয়ন, ন্যাটো এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে বলির পাঁঠা হয়ে উঠেছে বলে মনে হচ্ছে। অবশ্য আমেরিকা, ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও ন্যাটো দেশগুলো রাশিয়ার ওপর সব ধরনের নিষেধাজ্ঞা আরোপ করলেও মনে হয় রাশিয়া তাতে পাত্তা দেয় না। 2014 সালে, যখন ক্রিমিয়াকে রাশিয়ার জোরপূর্বক পদক্ষেপের মাধ্যমে সংযুক্ত করা হয়েছিল, তখন তার উপর সমস্ত নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছিল কিন্তু তাতে কোন প্রভাব পড়েনি।

রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞার কী প্রভাব পড়বে?
বাস্তবতা হলো এই বিধিনিষেধের সময় তিনি শুধু শক্তিশালীই হয়ে ওঠেননি, তার অর্থনৈতিক ব্যবস্থাও আগের চেয়ে শক্তিশালী হয়েছে। সামরিক শক্তি ও অস্ত্রের সামর্থ্যের জোরে আবারও পরাশক্তি হয়ে উঠছে বলে মনে হচ্ছে।

কেন রাশিয়া-ইউক্রেন সম্পর্ক তিক্ত?
গত কয়েক বছরে ইউক্রেন ও রাশিয়ার মধ্যে সম্পর্ক তিক্ত হয়েছে। এর কারণ ছিল ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও ন্যাটো দেশগুলোর প্রতি ইউক্রেনের ঝুঁকে পড়া। 2019 সালে, ইউক্রেন তার সংবিধান সংশোধন করে, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং ন্যাটোর সাথে যাওয়ার পথ পরিষ্কার করে।

এ কারণে গত কয়েক বছরে ইউক্রেনেও অনেক অশান্তি হয়েছে। রুশপন্থী প্রেসিডেন্টকে দেশ ছেড়ে পালাতে হয়েছে। ইউক্রেন মুক্ত বাণিজ্যের জন্য ইউরোপীয় ইউনিয়নের সাথে স্বাক্ষর করেছে। এটি রাশিয়াকে উত্তেজিত করেছে। তিনি মনে করতে শুরু করেন যে, ইউক্রেন যদি ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং ন্যাটোতে যোগ দেয়, তবে কেবল তার প্রভাব থেকে দূরে সরে যাবে না, ন্যাটোতে যোগদানের অর্থ হবে নিজের জন্য বিপদের ঘণ্টা।

কেন রাশিয়া চায় না ইউক্রেন ন্যাটোতে যাক
রাশিয়া বরাবরই আমেরিকার পর ন্যাটোকে সবচেয়ে বড় শত্রু বলে মনে করে। ইউক্রেন যদি সত্যিই ন্যাটোতে যোগ দিত, তাহলে রাশিয়ার পক্ষে এভাবে এই পদক্ষেপ নেওয়া সহজ ছিল না। তাহলে ন্যাটোর সব দেশ তার পাশে দাঁড়াতো। কিন্তু এখন বাস্তবতা হচ্ছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও ন্যাটোর কাছাকাছি যাওয়ার লক্ষ্যে ইউক্রেন রাশিয়ার সঙ্গে সম্পর্কের ক্ষেত্রে যে তিক্ততা তৈরি করেছিল তা তার জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে।

ইউক্রেন একা লাগছে
বাস্তবতা হলো রাশিয়া আক্রমণ করেছে এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলো দূর থেকে সেই দৃশ্য দেখছে। এখন পর্যন্ত ইউরোপীয় দেশ বা ন্যাটো থেকে এমন কোনো বিবৃতি আসেনি, যা দেখে মনে হচ্ছে তারা ইউক্রেনের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করবে এবং রাশিয়াকে প্রতিযোগিতা দেবে। রাশিয়ার সাথে যুদ্ধ ইউক্রেন বেশ একা বলে মনে হচ্ছে।

পুতিনের এই ধারণা ছিল। তিনি এই মূল্যায়ন করেছিলেন যে তিনি যদি এই সময়ে ইউক্রেন আক্রমণ করেন, তবে তিনি তার কী ক্ষতি করতে চলেছেন। তিনি পূর্বাভাস করেছিলেন যে তিনি যদি ইউক্রেন আক্রমণ করেন তবে তাকে আমেরিকা বা ইউরোপীয় দেশগুলির সাথে সামরিক সংঘর্ষের মতো একটি দিক মোকাবেলা করতে হতে পারে। বর্তমান পরিস্থিতিতে এটা স্পষ্ট যে রাশিয়া সহজেই ইউক্রেনকে তার নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেবে, তার পরে সে নিজের শর্তে সিদ্ধান্ত নেবে ইউক্রেনের ভবিষ্যত কী হবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *