প্রভাত বাংলা

site logo
Ukarin attck

ইউক্রেনে হামলার তৃতীয় দিন : কিয়েভে প্রবেশ করেছে রাশিয়ান সেনা, মুখোমুখি যুদ্ধ শুরু

ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলার আজ তৃতীয় দিন। শনিবার রাজধানী কিয়েভসহ ইউক্রেনের গুরুত্বপূর্ণ সব শহরেই বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। রাশিয়ান সৈন্যরা রাজধানী কিয়েভে প্রবেশ করেছে এবং ইউক্রেনের সেনাদের সাথে একের পর এক যুদ্ধ শুরু হয়েছে। এদিকে, ইউক্রেন 300 রুশ প্যারাট্রুপার বোঝাই দুটি বিমান গুলি করে ভূপাতিত করেছে বলে দাবি করেছে। রাশিয়ান সেনারা কিয়েভ বিমানবন্দর দখল করেছে।

এর আগে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ (ইউএনএসসি) রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব পাস করে। এই প্রস্তাবের পক্ষে ১১টি ও বিপক্ষে ১টি ভোট পড়ে। ভারত, চীন ও সংযুক্ত আরব আমিরাত ভোটে অংশ নেয়নি। তবে রাশিয়া ভেটো ক্ষমতা ব্যবহার করে এই নিন্দা প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছে।

গুরুত্বপূর্ণ আপডেট…

রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ বলেছেন, রাশিয়ার ইউক্রেন দখলের কোনো ইচ্ছা নেই। ইউক্রেনের সেনাবাহিনী অস্ত্র জমা দিলে মস্কো আলোচনায় বসতে প্রস্তুত।

ইউক্রেন দাবি করেছে, তারা রাশিয়ার একটি বিমান ভূপাতিত করেছে। এই বিমানে 150 রুশ প্যারাট্রুপার ছিল। কতজন নিহত হয়েছেন আর কতজন বেঁচে গেছেন।. এই তথ্য জানানো হয়নি।
ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি বলেছেন, রাশিয়ার সেনারা আজ রাতে রাজধানী কিয়েভে হামলা চালাবে। তিনি নাগরিকদের যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ার আহ্বান জানান।

ইউক্রেনের ভারতীয় দূতাবাস কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা না বলে ভারতীয় নাগরিকদের সীমান্ত এলাকায় যেতে নিষেধ করেছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইউক্রেন ভ্রমণকারী নাগরিকদের জন্য লেভেল-4 সতর্কতামূলক ভ্রমণ পরামর্শ জারি করেছে, যাতে নাগরিকদের সংবেদনশীল স্থানে না যেতে সতর্ক করা হয়েছে।

ব্রিটেন পুতিন এবং তার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভের সমস্ত সম্পদ বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দিয়েছে। কানাডা এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন সুইফট পেমেন্ট সিস্টেম থেকে রাশিয়াকে প্রত্যাহারের আহ্বান জানিয়েছে।

ফ্রান্স ইউক্রেনকে 300 মিলিয়ন ইউরো সাহায্য ও সামরিক সরঞ্জাম পাঠানোর প্রস্তাব দিয়েছে। ইউরোপে পুতিনের সমস্ত সম্পদ বাজেয়াপ্ত করতে রাজি হয়েছে ইইউ।

Read More :

রাশিয়ার বিরুদ্ধে প্রস্তাবে ভোট দেয়নি ভারত, জেনে নিন 3টি কারণ

  1. জাতিসংঘে ভারতের প্রতিনিধি টিএস তিরুমূর্তি: এটা দুঃখজনক যে কূটনীতির পথ পরিত্যাগ করা হয়েছে, আমাদের সেখানে ফিরে যেতে হবে। এসব কারণে ভারত এই প্রস্তাব থেকে বিরত থাকার পথ বেছে নিয়েছে।
  2. তিরুমূর্তি বলেছেন – গঠনমূলক পদ্ধতিতে এগিয়ে যাওয়ার জন্য জাতিসংঘের নীতিগুলিকে সম্মান করা সকল সদস্য দেশের জন্য প্রয়োজনীয়। সংলাপই পারস্পরিক বিরোধ ও বিরোধ নিষ্পত্তির একমাত্র উপায়, এই মুহূর্তে তা যতই কঠিন মনে হোক না কেন।
  3. ভারত বলেছে যে ইউক্রেনের সাম্প্রতিক ঘটনাবলিতে ভারত গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। যত তাড়াতাড়ি সম্ভব হিংসা ও শত্রুতা বন্ধ করার জন্য সমস্ত প্রচেষ্টা করা উচিত। মানুষের জীবনের মূল্য দিয়ে কোন সমাধান পাওয়া যাবে না।

জাতিসংঘের বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্র-যুক্তরাজ্য উত্তেজনা, চীনের অবস্থান ঠাণ্ডা
আমেরিকা: রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিনকে নিষিদ্ধ করার কথা বলেছিল আমেরিকা। ভারতীয় প্রতিনিধি আলোচনার মাধ্যমে সব বিতর্কিত সমস্যা সমাধানের ওপর জোর দেন।
ব্রিটেন: রুশ বাহিনীর বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ করলেন ব্রিটিশ প্রতিনিধি। তিনি বলেন, রুশ ট্যাংক সাধারণ মানুষকে পিষে ফেলছে।

চীন: চীনও ভোটে অংশ নেয়নি। চীনের স্থায়ী প্রতিনিধি ঝাং জুন বলেছেন যে আমরা বিশ্বাস করি যে সমস্ত রাষ্ট্রের সার্বভৌমত্ব এবং আঞ্চলিক অখণ্ডতাকে সম্মান করা উচিত। এক দেশের নিরাপত্তা অন্য দেশের নিরাপত্তা ক্ষুণ্ন করার মূল্যে করা যাবে না।

ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভে ভোরে হামলা হয়

রুশ হামলা মোকাবিলায় ইউক্রেনের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তার সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টে পেট্রোল বোমা তৈরির তথ্য শেয়ার করেছে। এর পাশাপাশি কিয়েভে স্বেচ্ছাসেবকদের 18 হাজার মেশিনগান দেওয়া হয়েছে।

সবচেয়ে বড় সতর্কবাণী- রাশিয়া ব্যবহার করতে পারে ফাদার অফ অল বোম্বস
ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলা এ যাবতকালের সবচেয়ে ভয়াবহ রূপ নিতে পারে বলে সতর্কবার্তা দিয়েছে পশ্চিমা দেশগুলো। ইউক্রেনের বিরুদ্ধে ‘ফাদার অফ অল বোম্বস’ ব্যবহার করতে প্রস্তুত পুতিন।

কেন এই বোমা বিপজ্জনক: বিশেষজ্ঞদের মতে, 2007 সালে তৈরি এই বোমার পতনের ফলে একটি সুপারসনিক তরঙ্গ সৃষ্টি হয়, যা এর লক্ষ্যকে বাষ্পে পরিণত করে। এর বিস্ফোরণের ফলে 44 টন TNT এর সমতুল্য বিস্ফোরণ ঘটে। বিশেষ বিষয় হল এটি ফাইটার জেট থেকেও নামানো যায়।

দেখুন কোন দিক থেকে ইউক্রেনে হামলা হয়

রাশিয়া এবং ইউক্রেন হামলার বিষয়ে 3টি সর্বশেষ বিবৃতি

  1. বিডেনের সতর্কবার্তা – প্রতি ইঞ্চি জমি রক্ষা করবে
    মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ন্যাটো সম্মেলনে তার মিত্রদের আশ্বস্ত করেছেন যে তিনি ন্যাটোর প্রতিটি ইঞ্চি ভূমি রক্ষা করবেন। বাইডেন বলেন, আমাদের ন্যাটো মিত্রদের সমর্থন এবং ইউরোপে সামরিক সক্ষমতা বাড়াতে আমরা অতিরিক্ত সেনা মোতায়েনের নির্দেশ দিয়েছি।
  2. ন্যাটোর উত্তর – আক্রমণ শুধুমাত্র ইউক্রেনের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়
    ন্যাটো প্রধান জেনস স্টলটেনবার্গ বলেছেন যে রাশিয়ার আক্রমণ কেবল ইউক্রেনের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়, তাই আমরা স্থল, সমুদ্র এবং আকাশে আমাদের বাহিনী মোতায়েন করছি। ন্যাটো 1949 সালে গঠনের পর থেকে ইতিহাসে প্রথমবারের মতো তার প্রতিক্রিয়া বাহিনী সক্রিয় করেছে।
  3. ইউক্রেন বলেছে- যুদ্ধবিরতি নিয়ে আলোচনা করতে প্রস্তুত
    ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি বলেছেন, আমরা রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধবিরতি নিয়ে আলোচনা করতে প্রস্তুত। উভয় দেশের কূটনীতিকরা আলোচনার স্থান ও বিষয় নির্ধারণ করছেন। তবে ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভে আজ রাতে হামলা চালানো হবে এবং সেই রাতেই ইউক্রেনের ভবিষ্যৎও নির্ধারণ করবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন তিনি।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *