প্রভাত বাংলা

site logo
Election

ইউপি নির্বাচন: পঞ্চম দফার নির্বাচন এসপি-বিএসপি-র জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ

ইউপি বিধানসভা নির্বাচন এখন ধীরে ধীরে পঞ্চম গেটে পৌঁছেছে। যদিও এই পর্যায়টি এসপি এবং বিএসপির জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, এটি বিজেপির জন্য পরীক্ষার সময়। যেখানে বিজেপির বিরুদ্ধে পুরনো জয় ধরে রাখার চ্যালেঞ্জ, সেখানে তা কাটিয়ে উঠতে হবে এসপি ও বিএসপিকে। 2017 সালের এই পর্বে বিজেপি 47টি আসন জিতেছিল এবং 2012 সালের নির্বাচনে এসপি 41টি আসন জিতেছিল।

পঞ্চম দফায় ১১টি জেলার ৬১টি আসনে ভোটগ্রহণ হবে। আমেঠি, সুলতানপুর, চিত্রকূট, প্রতাপগড়, কৌশাম্বি, প্রয়াগরাজ, বারাবাঙ্কি, অযোধ্যা, বাহরাইচ, শ্রাবস্তী এবং গোন্ডায় ভোট হবে। 2017 সালের নির্বাচনে, বিজেপি অযোধ্যার পাঁচটি আসন এবং গোন্ডার সাতটি আসনই জিতেছিল। অযোধ্যায় তৈরি হচ্ছে রাম মন্দির। বিধানসভা নির্বাচনে অযোধ্যায় রাম মন্দিরের প্রসঙ্গ তুলছে বিজেপি। এখন দেখার বিষয় সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে মন্দির নির্মাণে বিজেপি কতটা সুবিধা পায়। 2017 সালের মতো অযোধ্যা ও গোন্ডার সব আসন জিততে পারবে কি না।

আমেঠি ও সুলতানপুর একসময় কংগ্রেসের শক্ত ঘাঁটি ছিল। এই পর্বে এই দুই জেলায়ও ভোট হওয়ার কথা। কংগ্রেসের প্রিয়াঙ্কা গান্ধী তার দুর্গ বাঁচাতে কঠোর পরিশ্রম করছেন। 2017 সালে প্রতাপগড়ের রামপুরখাস আসনে জিতেছিল কংগ্রেস। এবারও কংগ্রেস বর্তমান বিধায়ক আরাধনা মিশ্রকে প্রার্থী করেছে। এখন দেখার বিষয় আমেঠি ও সুলতানপুরের ১০টি আসনে তিনি কতটি আসনে সাফল্য পান। 2017 সালের নির্বাচনে 11টি আসনে কংগ্রেস ছিল দুই নম্বরে।

Read More :

পঞ্চম দফার নেতৃত্ব নিয়েছেন স্বয়ং এসপি প্রধান অখিলেশ যাদব। তিনি নিজেই প্রতিটি জেলায় প্রচারণা চালাচ্ছেন। ২০১২ সালের মতো এবারও সাফল্য চান তিনি। 2017 সালে, এই পর্যায়টি এসপির জন্য খুব খারাপ ছিল। গত নির্বাচনে এসব জেলায় আসন পেয়েছিল মাত্র পাঁচটি। বিএসপির অবস্থা আরও খারাপ। মাত্র তিনটি আসনে জয়ী হতে পেরেছে। এই পর্বে, বিজেপি সাতটি, এসপি 27, বিএসপি 14টি আসনে দুই নম্বরে ছিল। এখন দেখতে হবে সব দলের কঠোর পরিশ্রম কতটা ফল দেয়।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *