প্রভাত বাংলা

site logo
Russia

রাশিয়ান মহাকাশ সংস্থার প্রধান বলেছেন – ভারতের উপর 500 টন স্পেস স্টেশন ফেলার বিকল্পও রয়েছে

মস্কো: রাশিয়া ইউক্রেনে যুদ্ধ শুরু করেছে। দুই দিন ধরে, রাশিয়ান সৈন্য এবং তাদের ক্ষেপণাস্ত্র এবং বিমান ইউক্রেনে ধ্বংসযজ্ঞ চালাচ্ছে। এসবের মধ্যেই রাশিয়ার ওপর কঠোর অর্থনৈতিক ও বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। বাইডেন বলেন, কিছু নিষেধাজ্ঞা রাশিয়ার মহাকাশ সংস্থার কার্যক্রমকে সীমিত করবে। এর পর পাল্টা জবাব দিয়েছেন রাশিয়ার মহাকাশ সংস্থা রোসকোমোসের প্রধান দিমিত্রি রোগজিন। রোগজিন সতর্ক করে দিয়েছিলেন যে ওয়াশিংটন যদি সহযোগিতা বন্ধ করে দেয়, তাহলে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন (আইএসআইএস) কে অনিয়ন্ত্রিত ডিওরবিট থেকে রক্ষা করবে?

আমেরিকার সিদ্ধান্তের পর রাশিয়ার মহাকাশ সংস্থা রোসকোমোসের প্রধান দিমিত্রি রোগোজিন টুইট করেছেন। তিনি লিখেছেন- ‘আপনি (বাইডেন) যদি আমাদের সঙ্গে সহযোগিতা বন্ধ করেন, তাহলে আইএসএসকে অনিয়ন্ত্রিতভাবে প্রদক্ষিণ করা এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বা ইউরোপে পড়ার হাত থেকে কে বাঁচাবে?’ রোগজিন হুমকির সুরে একটি টুইট থ্রেডে বলেছেন- ‘রাশিয়ার কাছে এটিরও বিকল্প রয়েছে। ভারত ও চীনের কাছে 500 টন কাঠামো ছেড়ে দেওয়া।

রোসকসমসের মহাপরিচালক দিমিত্রি রোগোজিন বলেছেন, ‘আইএসএস রাশিয়ার উপর দিয়ে উড়ে না, তাই সমস্ত ঝুঁকি আপনার হাতে। আপনি তাদের জন্য প্রস্তুত?’

দিমিত্রি রোগজিন বলেছেন, ‘আমেরিকা যদি রাশিয়ার মহাকাশ কর্মসূচি থেকে নিষেধাজ্ঞা না তোলে, তাহলে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন থেকে রাশিয়ার প্রত্যাহারের জন্য আমেরিকা দায়ী থাকবে। হয় আমরা একসঙ্গে কাজ করব, যার জন্য আমেরিকাকে অবিলম্বে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে হবে। অন্যথায় আমরা একসাথে কাজ করব না এবং আমরা আমাদের নিজস্ব স্টেশন স্থাপন করব।

রাশিয়ার মহাকাশ সংস্থার প্রধানের এই বক্তব্য মার্কিন নিষেধাজ্ঞার পর এলো। এই নিষেধাজ্ঞাগুলি রাশিয়ার সামরিক আধুনিকীকরণ এবং এর মহাকাশ কর্মসূচির অগ্রগতির সম্ভাবনাকে হ্রাস করার উদ্দেশ্যে।

কী বললেন জো বাইডেন?
রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, ‘আমরা আশা করছি যে আমরা রাশিয়ার উচ্চ প্রযুক্তির আমদানি অর্ধেকের বেশি সীমিত করব। এটি তাদের সেনাবাহিনীর আধুনিকীকরণ চালিয়ে যাওয়ার তাদের ক্ষমতার উপর প্রভাব ফেলবে। এটি তাদের মহাকাশ কর্মসূচি সহ তাদের মহাকাশ শিল্পকেও প্রভাবিত করবে।

এই নিষেধাজ্ঞার জন্য রাশিয়া কতটা প্রস্তুত?
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আট বছর আগের তুলনায় রাশিয়ার প্রতিষ্ঠানগুলো এখন নিষেধাজ্ঞার মুখোমুখি হওয়ার জন্য ভালোভাবে প্রস্তুত। অন্যদিকে রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ব্যাংকগুলো পশ্চিমা বাজার থেকে নিজেদের কিছুটা দূরে সরিয়ে নিয়েছে। রাশিয়া 2014 সাল থেকে মার্কিন ট্রেজারি এবং ডলার থেকে নিজেকে দূরে সরিয়ে রেখেছে। রাশিয়া ডলারের চেয়ে সোনা এবং ইউরোতে তার আমানত বেশি জমা করেছে।
রাশিয়ার আরও কিছু শক্তিশালী অর্থনৈতিক প্রতিরক্ষা রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে প্রায় $635 বিলিয়ন ডলারের কঠিন বৈদেশিক মুদ্রা, ব্যারেল প্রতি প্রায় $100 তেলের দাম এবং জিডিপির সাথে নিম্ন গড় ঋণ যা 2021 সালে ছিল 18 শতাংশ।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *