প্রভাত বাংলা

site logo
Russia

পুতিনকে চোখ দেখাতেন ইউক্রেনের এই নারী প্রধানমন্ত্রী: বলতেন- এক ইঞ্চি জমিও দেব না

ইউলিয়া তেমোসেনকোভা ছিলেন ইউক্রেনের প্রথম মহিলা প্রধানমন্ত্রী। তিনি দুইবার ইউক্রেনের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। এমনকি এই অবস্থানে থাকাকালীন, তিনি রাশিয়ার বিরুদ্ধে খোলাখুলি কথা বলেছেন। তিনি পশ্চিমের সাথে আরও ভাল সম্পর্কের উকিল ছিলেন এবং ইউক্রেনকে ন্যাটোতে অন্তর্ভুক্ত করতে চেয়েছিলেন।

ইউক্রেনের মানুষ ইউলিয়াকে স্মরণ করছে
রাশিয়া এই সময়ে আগ্রাসন প্রদর্শন করে ইউলিয়াকে ভয় দেখাতে পারেনি। ইউলিয়া যুদ্ধ না করে রাশিয়াকে ‘এক ইঞ্চি জমি’ও দিতে প্রস্তুত ছিল না। বর্তমান ইউক্রেন সংকটের পর সেখানকার মানুষ তাদের সাহসী নারী প্রধানমন্ত্রীকে স্মরণ করছে। ইউলিয়া তার হাতে দেশ পরিচালনা করলে পরিস্থিতি অন্যরকম হতো বলে মনে করেন তারা।

গ্যাস কুইন যিনি প্রধানমন্ত্রী হয়েছিলেন
ইউলিয়া ইউক্রেনে গ্যাস কুইন নামে পরিচিত ছিলেন। সেখানে তার গ্যাসের বড় ব্যবসা ছিল। তিনি ইউক্রেনের সবচেয়ে সফল ব্যবসায়ী নারীদের একজন হিসেবে গণ্য হন। পরে রাজনীতিতে আসার সিদ্ধান্ত নেন। শীঘ্রই তিনি ইউক্রেনের প্রথম মহিলা প্রধানমন্ত্রী হন। তিনি 2005 সালে কয়েক মাস এবং আবার 2007 থেকে 2010 পর্যন্ত ইউক্রেনের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন।

‘এক ইঞ্চি জমিও দেব না’
প্রধানমন্ত্রী বা বিরোধী দলের নেতা হয়েও ইউলিয়ার আগ্রাসী মনোভাব কখনো কমেনি। তিনি রাশিয়ার অভিভাবকত্ব থেকে ইউক্রেনকে অপসারণের পক্ষে ছিলেন। তিনি খোলাখুলি রাশিয়াকে হুমকি দিয়ে বলেছিলেন যে ‘রাশিয়াকে এক ইঞ্চি জমিও নিতে দেওয়া হবে না’।

কমলা বিপ্লবে রাষ্ট্রপতিকে দেশ ছাড়তে হয়েছিল
2004 সালের নির্বাচনে রাশিয়াপন্থী প্রেসিডেন্ট ভিক্টর ইউশনকভ জয়ী হন। ইউলিয়াসহ অন্য বিরোধী নেতারা ভিক্টরের বিরুদ্ধে নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ এনেছেন। যার কারণে দেশে শুরু হয় ‘কমলা বিপ্লব’। ইউলিয়ার দলের পতাকা ছিল কমলা রঙের এবং তার দল রুশ-ঝুঁকে থাকা ভিক্টরের বিরুদ্ধে অগ্রভাগে ছিল। যার কারণে এই আন্দোলনের নাম দেওয়া হয় ‘কমলা বিপ্লব’। ইউলিয়া এই আন্দোলনে প্রধান নেতা হিসেবে আবির্ভূত হন। আন্দোলনটি ইউক্রেনে ব্যাপক সমর্থন পেয়েছিল। অবশেষে ভিক্টরকে দেশ এবং পোস্ট ছেড়ে রাশিয়ায় পালাতে হয়েছিল।

যার জন্য সারা বিশ্বে আওয়াজ উঠেছে রাজনৈতিক বন্দী
2010 সালে, ইউলিয়া রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন। ফলাফলে, তিনি ভিক্টর ইউশনকভকে মাত্র 3.3% ভোটে পিছিয়ে দিয়েছেন। ভিক্টর ইউশনকভ রাষ্ট্রপতি হওয়ার সাথে সাথে ইউলিয়ার খারাপ দিন শুরু হয়েছিল। প্রেসিডেন্ট ভিক্টর ইউশনকভ যখন প্রধানমন্ত্রী ছিলেন, তখন রাশিয়ার সঙ্গে গ্যাস চুক্তিতে দুর্নীতির অভিযোগ এনে তাকে কারারুদ্ধ করেন। তিনি 2011 থেকে 2014 পর্যন্ত কারাগারে ছিলেন। বিশ্ব তার গ্রেফতারকে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা হিসেবে দেখেছে। জেলে অনেক নির্যাতনও সহ্য করেছেন। কারাগারে থাকা অবস্থায় তিনি ইউরোপীয় ইউনিয়ন, আমেরিকাসহ বিশ্বের অনেক দেশের সমর্থন পান।

Read More :

বিশ্বের তৃতীয় ক্ষমতাধর নারী
2005 সালে, ফোর্বস ম্যাগাজিন বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর মহিলাদের তালিকায় ইউলিয়াকে তিন নম্বরে স্থান দেওয়া হয়েছিল। ইউলিয়া শুধু ইউক্রেনেই নয়, সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের দেশগুলোতেও প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী ছিলেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *