প্রভাত বাংলা

site logo
putin

ইউক্রেনের জন্য ‘পরমাণু যুদ্ধের হুমকি’, পুতিন নিজেই করছেন নজরদারি

ইউক্রেন সীমান্তে প্রেসিডেন্ট পুতিনের তত্ত্বাবধানে কৌশলগত পরমাণু শক্তির সামরিক মহড়া শুরু করেছে রাশিয়া। এ থেকে বোঝা যায় রাশিয়া তার পারমাণবিক শক্তি দিয়ে ইউক্রেনকে ভয় দেখানোর চেষ্টা করছে। এর আগে রাশিয়ার পার্লামেন্ট পুতিনকে দেশের বাইরে শক্তি প্রয়োগের অনুমতি দিয়েছে। এর একদিন আগে পুতিন ইউক্রেনের দুটি অঞ্চলকে স্বাধীন দেশ হিসেবে স্বীকৃতি দেন। পুতিন বলেছিলেন যে এই অঞ্চলগুলি আর ইউক্রেনের অংশ নয় এবং তাদের সার্বভৌম অঞ্চল। এর মাধ্যমে আমেরিকা ও পশ্চিমা দেশগুলোর হুঁশিয়ারিকে সম্পূর্ণ উপেক্ষা করে ইউক্রেন ও রাশিয়ার মধ্যে যুদ্ধের সরাসরি আমন্ত্রণ জানিয়েছে রাশিয়া। অন্যদিকে, ইউক্রেনের চারপাশে অবস্থানরত সেনাবাহিনীকে ‘হামলার জন্য প্রস্তুত’ বলে অভিযুক্ত করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধ নিয়ে পশ্চিমা দেশ রাশিয়ার উদ্বেগ বাড়ছে। এদিকে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বিডেনের জাতীয় নিরাপত্তা দল তাকে বলেছে যে তারা এখনও বিশ্বাস করে “রাশিয়া যে কোনো সময় ইউক্রেনে হামলা চালাতে পারে”। জো বাইডেন তার সিনিয়র উপদেষ্টাদের সাথেও এই বিষয়ে আলোচনা করেছেন।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, রাশিয়ার পক্ষ থেকে তথ্য দেওয়া হয়েছে যে রাশিয়ার সর্বশেষ সামরিক মহড়ায় যুদ্ধজাহাজ, সাবমেরিন এবং যুদ্ধবিমান থেকে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করা হবে এবং স্থল থেকে সমুদ্র ও স্থল লক্ষ্যবস্তুতেও আঘাত হানবে।

শক্তিশালী G7 দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা বলেছেন, তারা রাশিয়া থেকে সেনা প্রত্যাহারের কোনো লক্ষণ দেখছেন না এবং পূর্ব ইউরোপের অঞ্চলে রাশিয়ার সামরিক তৎপরতা উদ্বেগজনক।

এদিকে ইউক্রেন সংকটের মধ্যেই রাশিয়ার ওপর কঠোর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডা। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন মঙ্গলবার রাশিয়ার বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা ঘোষণা করার সময়, তার রুশ প্রতিপক্ষ ভ্লাদিমির পুতিনকে ইউক্রেনকে উসকানি ও উসকানি দেওয়ার অভিযোগও এনেছেন। রাশিয়ার বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা করে, বাইডেন হোয়াইট হাউসে সাংবাদিকদের বলেন যে “রাশিয়া যে আগ্রাসন করছে তাতে কোন সন্দেহ নেই। সুতরাং, আমরা যে চ্যালেঞ্জগুলোর মুখোমুখি হচ্ছি সে সম্পর্কে আমরা পরিষ্কার।”

কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো বলেছেন, “রাশিয়ার প্রকাশ্যে উস্কানি বিশ্বের নিরাপত্তা ও শান্তির জন্য হুমকি।” রাশিয়া-ইউক্রেন সংকট নিয়ে আলোচনার জন্য একটি সংবাদ সম্মেলনে ট্রুডো বলেন, কানাডার নিষেধাজ্ঞাগুলি “ইউক্রেনের আঞ্চলিক অখণ্ডতা পুনরুদ্ধার না হওয়া পর্যন্ত বলবৎ থাকবে।”

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *